বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > Jammu and Kashmir: সন্ত্রাসবাদীদের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ৪ অফিসারকে বরখাস্ত করল জম্মু ও কাশ্মীর সরকার

Jammu and Kashmir: সন্ত্রাসবাদীদের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ৪ অফিসারকে বরখাস্ত করল জম্মু ও কাশ্মীর সরকার

বিট্টা কারাত এবং তার স্ত্রী আসাবাহ।

যে ৪ অফিসারকে বরখাস্ত করা হয়েছে বরখাস্ত করা হয়েছে তারা হলেন কাশ্মীর বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্সে বিভাগের আধিকারিক ড. মুহিত আহমদ, বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক মাজিদ হুসেন কাদরি, বিশ্ববিদ্যালয়ের আইটি বিভাগের ম্যানেজার সৈয়দ আবদুল মুয়েদ এবং আসাবাহ-উল-আরজামান্দ খান।

৪ জন সরকারি অফিসারকে কাজ থেকে বরখাস্ত করল জম্মু-কাশ্মীর সরকার। এর মধ্যে রয়েছেন কাশ্মীরি পন্ডিতদের হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত সন্ত্রাসবাদী বিট্টা কারাতের স্ত্রী। সন্ত্রাসবাদীদের মদত দেওয়ার অভিযোগে এই চারজনকে কাজ থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে বলে জম্মু-কাশ্মীরের প্রশাসনিক সূত্রে জানা গিয়েছে। সন্ত্রাসবাদীদের সঙ্গে তাদের জড়িত বিষয়টি সম্প্রতি গোয়েন্দাদের নজরে আসে। তারপরেই সরকারের এই সিদ্ধান্ত। এদের মধ্যে ৩ জন জম্মু ও কাশ্মীর বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন পদে কর্মরত ছিলেন।

যে ৪ অফিসারকে বরখাস্ত করা হয়েছে বরখাস্ত করা হয়েছে তারা হলেন কাশ্মীর বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্সে বিভাগের আধিকারিক ড. মুহিত আহমদ, বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক মাজিদ হুসেন কাদরি, বিশ্ববিদ্যালয়ের আইটি বিভাগের ম্যানেজার সৈয়দ আবদুল মুয়েদ এবং আসাবাহ-উল-আরজামান্দ খান। জানা গিয়েছে, জম্মু কাশ্মীর লিবারেশন ফ্রন্টের কমান্ডার ফারুক আহমেদ দার ওরফে বিট্টা কারাতের স্ত্রী আসাবাহ-উল-আরজামান্দ খান। তিনি কাশ্মীরের গ্রামোন্নয়ন অধিদপ্তরের আধিকারিক ছিলেন।

ফারুক আহমেদ সম্প্রতি একটি ভিডিয়ো প্রকাশ করে ১৯৯০ সালে কাশ্মীরি পন্ডিতকে খুনের কথা স্বীকার করেছেন। ওই কাশ্মীরি পণ্ডিত সতীশ টিকুর পরিবার বিট্টা কারাতের ভিডিয়োর সত্যতা যাচাই করার জন্য একটি আবেদন করেছিল। উল্লেখ্য, কাশ্মীরি পণ্ডিতকে হত্যা করার অভিযোগে ১৯৯০ সালের জুন মাসে বিট্টাকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। ১৬ বছর বিভিন্ন কারাগারে কাটানোর পর ২০০৬ সালে জম্মুর একটি আদালতে তিনি জামিনে মুক্তি পান। ২০১৯ সালে আবার গ্রেফতার করা হয়।

বন্ধ করুন