বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > ৩০ বছর ধরে বাথরুমের জল পান করা হচ্ছিল এই হাসপাতালে, খেলেন সকলেই!
সম্ভবত কলের মিস্ত্রির গন্ডগোল। আর তার জেরেই গত ৩০ বছর ধরে টয়লেটের জলই পানীয় বলে ধরা হয়েছে জাপানের এক হাসপাতালে। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
সম্ভবত কলের মিস্ত্রির গন্ডগোল। আর তার জেরেই গত ৩০ বছর ধরে টয়লেটের জলই পানীয় বলে ধরা হয়েছে জাপানের এক হাসপাতালে। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

৩০ বছর ধরে বাথরুমের জল পান করা হচ্ছিল এই হাসপাতালে, খেলেন সকলেই!

  • রোগীদের পক্ষে বিশেষত, অপরিশোধিত জল পান করা যে বেশ বিপজ্জনক, তা বলাই বাহুল্য।

সম্ভবত কলের মিস্ত্রির গন্ডগোল। আর তার জেরেই গত ৩০ বছর ধরে টয়লেটের জলই পানীয় বলে ধরা হয়েছে জাপানের এক হাসপাতালে। হাসপাতালের কর্মী-চিকিত্সক থেকে রোগী- সকলেই এই জলই পান করেছেন। রোগীদের পক্ষে বিশেষত, অপরিশোধিত জল পান করা যে বেশ বিপজ্জনক, তা বলাই বাহুল্য।

গত মাসেই এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসে। ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন ওসাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক এবং হাসপাতালের ভাইস প্রেসিডেন্ট কাজুহিকো নাকাতানি।

জাপানের সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, হাসপাতালটি ওসাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থিত। ক্লিনিকের ভবনটি মেডিসিন বিভাগের সঙ্গে সংযুক্ত। হাসপাতালটির মোট ১২০​​টি কলেই সাধারণ কূপের জল প্রবাহিত হত। এই সাধারণ অপরিশোধিত জলই পানীয় জল হিসেবে ব্যবহার করা হত হাসপাতালে। ১৯৯৩ সালে হাসপাতাল নির্মাণের সময়ে পাইপ সংযোগে ত্রুটির কারণে এমনটা হয়েছে বলে মত কর্তৃপক্ষের।

কিন্তু তারপর ৩০ বছরে একবারও তা কারও নজরে এল না? অদ্ভুতভাবে, কারও নজরে আসেনি এই সমস্যা। চলতি বছর নয়া ভবন তৈরির সময়ে পুরনো ভবনগুলির পরিদর্শন করা হয়। তখনই ধরা পড়ে এই গলদ।

তবে অপরিশোধিত জল ব্যবহার করা হলেও এখনও পর্যন্ত হাসপাতালে এসে কারও জলবাহিত রোগ হয়নি। ২০১৪ সাল থেকে প্রতি সপ্তাহে জলের পরীক্ষাও করা হত বলে জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। কোনওবারেই জলে ক্ষতিকারক কিছু মেলেনি।

বন্ধ করুন