বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > বিরক্ত নীতীশ, ভিন ধর্মে বিয়ে নিয়ে বিজেপি-র বাড়াবাড়িতে বিরক্ত জেডি(ইউ)
পটনায় জেডি(ইউ) এর বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার। ছবি-পিটিআই। (PTI)
পটনায় জেডি(ইউ) এর বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার। ছবি-পিটিআই। (PTI)

বিরক্ত নীতীশ, ভিন ধর্মে বিয়ে নিয়ে বিজেপি-র বাড়াবাড়িতে বিরক্ত জেডি(ইউ)

  • নতুন আইন এনে ভিনধর্মে বিয়েকে অপরাধের তালিকাভুক্ত করার জন্য বিজেপি-র প্রচেষ্টার কড়া সমালোচনা করলেন নীতীশ কুমার।

নতুন আইন এনে ভিনধর্মে বিয়েকে অপরাধের তালিকাভুক্ত করতে বিজেপি-র উদ্যোগ ঘিরে বিহারে সরকার গঠনের মাত্র কয়েক মাসের মধ্যে বেসুরো বাজতে শুরু করেছে এনডিএ জোট। 

রবিবার জেডি(ইউ) দলের সর্বভারতীয় একজিকিউটিভ বৈঠকে বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার বিজেপি-র উদ্যোগ সম্পর্কে বিরক্তি উগরে দেন। সেই সঙ্গে অরুণাচল প্রদেশে ঘটনাতেও জোটসঙ্গীর প্রতি বিরূপ ভাব প্রকাশ করেন তিনি। বৈঠকে নীতীশ বলেন, ‘অনেকেই সমাজে ঘৃণা ছড়ানোর কাজ শুরু করেছেন।’ কারও নাম না বললেও তাঁর নিশানায় যে গেরুয়া শিবির, তা গোপন করেননি নীতীশ অনুগামীরা। বৈষম্য হঠাতে দলের কর্মী-নেতাদের সোশ্যাল মিডিয়ায় ঐক্যের বার্তা প্রচারের পরামর্শ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

পরে সান্ধ্য সাংবাদিক বৈঠকে জেডি(ইউ) সর্বভারতীয় প্রধান সম্পাদক কে সি ত্যাগি নীতীশের সুরেই বলেন, ‘সমাজকে খণ্ডিত করার চেষ্টা চলছে। তা অন্যায়।’

বর্ষীয়ান জেডি(ইউ) নেতা বলেন, ‘ঘৃণার আবহ সৃষ্টি করে লাভ জিহাদের নামে বৈষম্যে ইন্ধন জোগানো হচ্ছে। জেডি(ইউ) তা ভালো মনে করে না এবং এই তত্ত্ব সমর্থনও করে না।’

অরুণাচল প্রদেশে বিজেপি-র দল ভাঙানোর চেষ্টা নিয়েও সাফ আপত্তি জানিয়েচে নীতীশের দল। সম্প্রতি সে রাজ্যের ৬ জেডি(ইউ) বিধায়ক বিজেপি-তে যোগ দিয়েছেন। এর প্রতিক্রিয়ায় ত্যাগি বলেন, ‘আমরা আহত। জোটের পক্ষে এ ভালো ইঙ্গিত নয়। ওদের উচিত অটল বিহারী বাজপেয়ীর নীতি অনুসরণ করা। ওঁদের মন্ত্রিসভার অন্তর্ভুক্ত না করে দলে অন্তর্ভুক্ত করা হল।’ তবে অরুণাচলের ঘটনা বিহারে জোটের উপরে কোনও প্রভাব ফেলবে না বলেও জানান ত্যাগি।

বিহারের অন্যতম উপ-মুখ্যমন্ত্রী রেণুদেবীও বলেন, ‘আমরা ওঁদের (জেডিইউ বিধায়কদের) জোর করে দল বদলে ইন্ধন জোগাইনি। কয়েক জন বিধায়ক যদি দল ছেড়ে বিজেপি-তে আসতে চান, তা হলে আমাদের কী করার আছে।’

অন্য দিকে, বিধানসভা নির্বাচনে মাত্র ৪৩টি আসন পেলেও তাঁকে মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার জন্য চাপ দেওয়া হয় বলে অভিযোগ করেছেন নীতীশ কুমার। তিনি বলেন, ‘আর কেউ মুখ্যমন্ত্রী হলেও তা আমাকে প্রভাবিত করবে না। আমার এই পদে থাকার ইচ্ছা নেই। আমি একজন বিজেপি মুখ্যমন্ত্রী চাই এবং এই বিষয়ে সব রকম সহযোগিতা করব।’

নীতীশের কথায় বিভাজনের সুর শোনার পরেই বিজেপি মুখপাত্র নিখিল আনন্দ তড়িঘড়ি জানিয়েছেন, ‘নীতীশ কুমারকে ২০০৫ সালে এনডিএ নেতা নির্বাচন করা হয় এবং সেই সময় থেকেই তিনি জোটকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। তাঁর শাসনে বিহারে প্রভূত উন্নয়ন হয়েছে এবং ভবিষ্যতেও তিনি সেই দায়িত্ব পালন করবেন।’

বন্ধ করুন