বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > Jet Air CEO on AI Flight Urine Shocker: সহযাত্রীর গায়ে মত্ত ব্যক্তির টয়লেট করার পিছনে বিমানকর্মীদের ‘দোষ’ দেখছেন জেট CEO

Jet Air CEO on AI Flight Urine Shocker: সহযাত্রীর গায়ে মত্ত ব্যক্তির টয়লেট করার পিছনে বিমানকর্মীদের ‘দোষ’ দেখছেন জেট CEO

সহযাত্রীর গায়ে মত্ত ব্যক্তির টয়লেট করার ঘটনায় নিজের মতামত ব্যক্ত করলেন জেট CEO (পিটিআই)

সঞ্জীব কাপুর বলেন, 'যাত্রী নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে কখনই কেবিনের আলো বন্ধ করে দেওয়া উচিত নয়।' উল্লেখ্য, অভিযোগ ওঠে, এয়ার ইন্ডিয়ার উড়ানে আলো বন্ধ করার পরই নিজের আসন থেকে উঠে মহিলার গায়ে টয়লেট করে দিয়েছিলেন ব্যক্তি।

এয়ার ইন্ডিয়ার উড়ানে সহযাত্রীর গায়ে মত্ত ব্যবসায়ীর টয়লেট করে দেওয়ার ঘটনায় এখন তোলপাড় গোটা ইন্ডাস্ট্রি। এই আবহে এই প্রসঙ্গে নিজের মতামত প্রকাশ করলেন জেট এয়ারওয়েজ সিইও সঞ্জীব কাপুর। সঞ্জীব কাপুর বলেন, 'যাত্রী নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে কখনই কেবিনের আলো বন্ধ করে দেওয়া উচিত নয়।' উল্লেখ্য, অভিযোগ ওঠে, এয়ার ইন্ডিয়ার উড়ানে আলো বন্ধ করার পরই নিজের আসন থেকে উঠে মহিলার গায়ে টয়লেট করে দিয়েছিলেন ব্যক্তি। এই নিয়ে সঞ্জীব কাপুরের বক্তব্য, 'কখনও কেবিনের আলো বন্ধ করে দেওয়া উচিত না, বরং তা ডিম করে রাখা উচিৎ।' তিনি অভিযোগ করেন, বিমানকর্মীরা নিজেদের ওপর চাপ কমাতে যাত্রীদের জোর করে ঘুম পাড়ানোর চেষ্টা করেন। আর তাই আলো পুরোপুরি বন্ধ করে দেওয়া হয় অনেক বিমানে। (আরও পড়ুন: বাসে মহিলা যাত্রীর সামনে পুরুষাঙ্গ প্রদর্শন করে কান্না ব্যক্তির! ভাইরাল ভিডিয়ো)

সঞ্জীব কাপুরের যুক্তি, কেবিনে আলো পুরোপুরি বন্ধ করে দিলে যাত্রী বা বিমানকর্মীদেরই আইল দিয়ে হাঁটাচলা করতে সমস্যা হবে। হঠাৎ করে হোঁচট খেয়ে পড়ে যেতে পারেন যে কেউ। পাশাপাশি তাঁর 'পরামর্শ' শুধুমাত্র টেকঅফ এবং ল্যান্ডিং বাদে অন্য সময়ের জন্য আলোর 'মাস্টার কন্ট্রোল' বিমানকর্মীদের কাছে থাকা উচিত নয়। তিনি বলেন, 'এই মাস্টার কন্ট্রোলের অপব্যবহার বহু বিমান সংস্থাতেই দেখেছি।' তিনি এও অভিযোগ করেন, অনেক উড়ানেই দিনের বেলাতেও জানলার 'ব্লাইন্ড' রিমোট দিয়ে বন্ধ করে কেবিনের আলো পুরোপুরি বন্ধ করে দেন বিমানকর্মীরা।

উল্লেখ্য, নিউইয়র্কের জেএফকে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে নয়াদিল্লিগামী বিমানে এক মহিলা সহযাত্রীর গায়ে মূত্র বিসর্জন করার অভিযোগ উঠেছে এক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে। ঘটনাটি গত ২৬ নভেম্বর ঘটলেও সম্প্রতি এই ঘটনাটি প্রকাশ্যে এসেছে। ইতিমধ্যেই অভিযুক্ত মুম্বই ভিত্তিক ব্যবসায়ী শেখর মিশ্রের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৫৪, ২৯৪, ৫০৯, ৫১০ নং ধারার অধীনে মামলা রুজু করা হয়েছে।

অভিযোগ, ৭০ বছর বয়সি এক বৃদ্ধার গায়ে মত্ত অবস্থায় মূত্র বিসর্জন করেছিলেন শেখর। সেই বৃদ্ধা এই ঘটনা সম্পর্কে কেবিন ক্রুকে অবগত করলেও অভিযুক্ত যাত্রীর বিরুদ্ধে কোনও পদক্ষেপ করা হয়নি। এমনকী দিল্লি বিমানবন্দরে সেই বিমানটি অবতরণ করার পর অভিযুক্ত ব্যক্তি নিজের বাড়ি চলে যান। তখন সেই অভিযুক্তের বিরুদ্ধে কোনও পদক্ষেপ করা হয়নি। তবে জাতীয় মহিলা কমিশন ঘটনাটি নিয়ে সক্রিয় হয়েছে। পুলিশে এফআইআর করা হয়েছে। রিপোর্ট অনুযায়ী, এআই-১০২ নং উড়ানে ঘটনাটি ঘটেছে। নিউইয়র্ক বিমানবন্দর থেকে উড়ানটি টেকঅফ করার পর লাঞ্চ দেওয়া হয় যাত্রীদের। এরপর যাত্রীদের বিশ্রাম নেওয়ার জন্য বিমানের লাইট বন্ধ করে দেওয়া। এরপরই অভিযুক্ত ব্যক্তি বৃদ্ধার আসনের সামনে এসে নিজের প্যান্টের জিপ খুলে মূত্র বিসর্জন শুরু করেন।

বন্ধ করুন