বাড়ি > ঘরে বাইরে > রাতের পার্কে অশরীরীর ব্যায়াম! তদন্তে নেমে রহস্য ফাঁস পুলিশের
গুজব রটে ভিডিয়োতে দেখা জনশূন্য পার্কে দুলে চলা ব্যায়ামের যন্ত্রপাতি নিয়ে।
গুজব রটে ভিডিয়োতে দেখা জনশূন্য পার্কে দুলে চলা ব্যায়ামের যন্ত্রপাতি নিয়ে।

রাতের পার্কে অশরীরীর ব্যায়াম! তদন্তে নেমে রহস্য ফাঁস পুলিশের

  • অশরীরীর নড়চড়ায় কাজ করে চলেছে জিমের যন্ত্রপাতি। ঝাঁসি শহরের অবাক করা এই ভিডিয়ো সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছিল।

জনশূন্য পার্কে দুলে চলে রয়েছে ব্যায়ামের যন্ত্রপাতি। ভৌতিক কাণ্ড নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় হইচই হলেও রহস্য ফাঁস করে দিল পুলিশ।

অন্ধকার পার্কের খোলা জিমে কোনও মানুষের দেখা নেই, তবু অদৃশ্য কোনও শক্তি ব্যায়াম করে চলেছে। সেই অশরীরীর নড়চড়ায় কাজ করে চলেছে জিমের যন্ত্রপাতি। উত্তরক প্রদেশের ঝাঁসি শহরের অবাক করা এই ভিডিয়ো সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করার পরে শোরগোল পড়ে গিয়েছিল নেট দুনিয়ায়। অনেকেই এর পিছনে ভৌতিক উপস্থিতি রয়েছে বলে প্রচারও শুরু করেছিলেন। কিন্তু উত্তেজনার পারদ চড়তেই তাতে জল ঢালল ঝাঁসি পুলিশ। 

রাতে অনুসন্ধান চালিয়ে ভৌতিক কাণ্ডের পিছনে দুষ্কৃতীদের ফন্দি ধরে ফেলেছেন গোয়েন্দারা। আর তার পরে সেই সোশ্যাল মিডিয়াতে পুলিশ ঘোষণা করেছে, ‘ভূত-টূত সব গুজব’। 

সোশ্যাল মিডিয়ার প্রচার দেখে রাতে ওই পার্কে হানা দিয়েছিলেন গোয়েন্দারা। সরেজমিনে তদন্তের পরে জানা গিয়েছে, ব্যায়ামের সুইংয়ে অতিরিক্ত পরিমাণে গ্রিজ মাখানোর ফলে একবার তাকে নাড়িয়ে দিলে বেশ কয়েক সেকেন্ড নজে থেকেই ওঠানামা করে। সেই সময় কেউ ভিডিয়ো তুললে দর্শকের মনে বিশ্বাস তৈরি হতে বাধ্য যে, কোনও সাহায্য ছাড়াই কাজ করছে জিমের যন্ত্র।

গোয়েন্দারা সেই কৌশল ধরে ফেলার পরে তার ভিডিয়োও রেকর্ড করেছেন। এবার দুষ্কৃতীদের খোঁজে তল্লাশি শুরু হয়েছে। খোঁজ নেওয়া হচ্ছে, ভূতের গুজব ছড়িয়ে জিম বন্ধ করে দিতে পারলে কার বা কাদের লাভ হতে পারে। 

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া ভিডিয়ো নিজের টুইটার হ্যান্ডেলে পোস্ট করে ঝাঁসি পুলিশের শীর্ষকর্তা রাহুল শ্রীবাস্তব প্রশ্ন তুলেছিলেন, ‘ফিটনেসপ্রেমী ভূত? দুষ্কৃতীদের কোনও ভূতুড়ে লকআপে শিগগিরই জায়গা হবে। #NoHostForGhost।’ 

গোয়েন্দারা সেই কৌশল ধরে ফেলার পরে তার ভিডিয়োও রেকর্ড করেছেন। এবার দুষ্কৃতীদের খোঁজে তল্লাশি শুরু হয়েছে। খোঁজ নেওয়া হচ্ছে, ভূতের গুজব ছড়িয়ে জিম বন্ধ করে দিতে পারলে কার বা কাদের লাভ হতে পারে। 

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া ভিডিয়ো নিজের টুইটার হ্যান্ডেলে পোস্ট করে ঝাঁসি পুলিশের শীর্ষকর্তা রাহুল শ্রীবাস্তব প্রশ্ন তুলেছিলেন, ‘ফিটনেসপ্রেমী ভূত? দুষ্কৃতীদের কোনও ভূতুড়ে লকআপে শিগগিরই জায়গা হবে। #NoHostForGhost।’

 

শ্রীবাস্তবের অবশ্য মজাদার ঘটনার ভিডিয়ো শেয়ার করার বাতিক রয়েছে। এর আগে পঙ্গপাল তাড়াতে ঝাঁসির চাষিদের চড়া সুরে ডিজে সংগীত বাজানোর ভিডিয়ো তিনি শেয়ার করেন। সঙ্গে ক্যাপশন লেখেন, ‘ডিজে শুধু পার্টিতেই কাজে লাগে না, পঙ্গপাল তাড়াতেও কার্যকরী। সবারই দিন বদলেছে! চাইলে চেঁচিয়ে বা থালা বাজিয়েও এই কাজ করতে পারেন।’

বন্ধ করুন