বাড়ি > ঘরে বাইরে > দশম শ্রেণি পাস! ঠাট্টার জবাবে ২৫ বছর পর স্কুলে ভরতির আবেদন ঝাড়খণ্ডের শিক্ষামন্ত্র্রীর
দশম শ্রেণি পাস শিক্ষামন্ত্রী! দুর্নাম ঘোচাতে ২৫ বছর পর স্কুলে ভরতির আবেদন শিক্ষামন্ত্রীর (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য এএনআই)
দশম শ্রেণি পাস শিক্ষামন্ত্রী! দুর্নাম ঘোচাতে ২৫ বছর পর স্কুলে ভরতির আবেদন শিক্ষামন্ত্রীর (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য এএনআই)

দশম শ্রেণি পাস! ঠাট্টার জবাবে ২৫ বছর পর স্কুলে ভরতির আবেদন ঝাড়খণ্ডের শিক্ষামন্ত্র্রীর

  • আপাতত ইন্টার মিডিয়েট পরীক্ষার গণ্ডি টপকানোই লক্ষ্য শিক্ষামন্ত্রীর।

শিক্ষামন্ত্রীই কিনা দশম শ্রেণি পাশ! তা নিয়ে রাজ্য রাজনীতিতে কম খোঁটা শুনতে হয়নি। সইতে হয়েছে গঞ্জনা। তাই প্রায় ২৫ বছর পর আবারও স্কুলে ভরতি হতে চলেছেন ঝাড়খণ্ডের মানবসম্পদ ও উন্নয়নমন্ত্রী জগরন্নাথ মাহাতো। ইতিমধ্যে একটি স্কুলে একাদশ শ্রেণিতে আবেদনও করেছেন।

১৯৯৫ সালে ম্যাট্রিক পরীক্ষায় (দশম শ্রেণি) উত্তীর্ণ হয়েছিলেন জগরন্নাথ। তারপর চুকিয়ে দিয়েছিলেন পড়াশোনার পাঠ। সেই ঘটনার পর দামোদর দিয়ে অনেক জল বয়ে গিয়েছে। জগরন্নাথকে ঝাড়খণ্ডের মানবসম্পদ ও উন্নয়নমন্ত্রী হয়েছেন। তারপর থেকেই বিরোধীদের সমালোচনা মুখে পড়তে হয়েছে। শিক্ষামন্ত্রীর শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে শুনতে প্রায়শই বাঁকা মন্তব্য শুনিয়েছেন অনেকে। ক্রমশ সেই সমালোচনার মাত্রা বাড়ছিল। তাই আবারও পড়াশোনা শুরুর সিদ্ধান্ত নেন জগরন্নাথ।

সোমবার বোকারো জেলার নওয়াদিহয়ের সরকার অনুমোদিত দেবী মাহাতো ইন্টার কলেজে একাদশ শ্রেণির কলা বিভাগে ভরতির আবেদন করেছেন। গিরিড জেলার দুমরির বিধায়ক বলেন, ‘আমি একজন রাজনীতিবিদ। তাই বিষয়টি অবশ্যই রাষ্ট্রবিজ্ঞান হতে হবে। শীঘ্রই আমি বাকি বিষয়গুলি বেছে নেব।’

কিন্তু একটি গুরুত্বপূর্ণ দফতর সামলানো এবং পড়াশোনার মধ্যে কীভাবে ভারসাম্য রাখবেন? জগরন্নাথ বলেন, ‘শিক্ষা দফতরের সঙ্গে আমার পড়াশোনাও চালিয়ে যাব আমি। আগে আমি ভরতি হই। আমি আজ (সোমবার) সবে ভরতির আবেদন করেছি। যদি নিয়মের মধ্যে পড়ে তাহলে ভরতি হতে পারব। তারপর ভারসাম্য বজায় রাখার বিষয়ে ভাবব।’  

তাহলে কি স্নাতক হওয়ার ইচ্ছা আছে? শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আমার প্রথম লক্ষ্য হল, ইন্টার মিডিয়েট পরীক্ষায় পাস করা। তারপর আমি সেটার বিষয়ে ভাবব।’

বন্ধ করুন