বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > Joshimath Crisis: যোশীমঠ জুড়ে আরও বাড়িতে ফাটল, ১.৫ লাখ টাকার সাময়িক ত্রাণ ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে, জানাল ধামি সরকার

Joshimath Crisis: যোশীমঠ জুড়ে আরও বাড়িতে ফাটল, ১.৫ লাখ টাকার সাময়িক ত্রাণ ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে, জানাল ধামি সরকার

যোশীমঠের করুণ ছবি। (ANI Photo) (HT_PRINT)

যোশীমঠের পরিস্থিতি সরেজমিনে দেখেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী পুষ্কর সিং ধামি। জানা গিয়েছে, তাঁর থেকে সমস্ত তথ্যের খোঁজ নিচ্ছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।বর্তমানে ৭২৩ টি বাড়িতে ফাটল ধরেছে যোশাীমঠে। ১৩১টি পরিবারকে বাড়ি থেকে সরিয়ে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

উত্তরাখণ্ডের যোশীমঠে দিনে দিনে ভয়াবহ ছবি উঠে আসছে। ভূমি অবনমনের ফলে ফাটল ধরতে থাকা বাড়ির সংখ্যা আরও বাড়ছে। বর্তমানে ৭২৩ টি বাড়িতে ফাটল ধরেছে। ১৩১টি পরিবারকে বাড়ি থেকে সরিয়ে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে যোশীমঠে ক্ষতিগ্রস্তদের ১.৫ লাখ টাকার সাময়িক ত্রাণ দিয়েছে উত্তরখাণ্ড সরকার।

উল্লেখ্য, সদ্য যোশীমঠের পরিস্থিতি সরেজমিনে দেখেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী পুষ্কর সিং ধামি। জানা গিয়েছে, তাঁর থেকে সমস্ত তথ্যের খোঁজ নিচ্ছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। এদিকে, কেন্দ্রের তরফে প্রতিটি বিষয়ের পর্যালোচনা চলছে যোশীমঠ নিয়ে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী নিজে নজরদারি চালাচ্ছেন পরিস্থিতি নিয়ে। উল্লেখ্য, এর আগে, যোশীমঠে বিপজ্জনক চিহ্নিত করা বিল্ডিং গুলিকে ভেঙে ফেলার কাজ বুধবার থেকে শুরু হয়। তারপরই পছে নামেন স্থানীয়রা। তাঁরা দাবি তোলেন, অই ইমারত ভেঙে ফেলা নিয়ে উপযুক্ত ত্রাণ নিতে হবে। তারপরই উত্তরাখণ্ড সরকারের তরফে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের জন্য ঘোষণা করা হয় ত্রাণের। জানা গিয়েছে, সদ্য যোশীমঠে দুটি হোটেলকে বিপজ্জনক চিহ্নিত করা হয়েছে। একটি হোটেলের মালিক জানিয়েছেন, তাঁকে উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ না দিলে, তিনি নিজেকে শেষ করে ফেলার হুমকি দেন। উল্লেখ্য, দেবভূমি উত্তরাখণ্ডে দুটি হোটেল একে অপরের দিকে হেলে থাকার ফলে তা বিপজ্জনক পরিস্থিতির দিকে গিয়েছে। তার জন্যই ওই হোটেল ভেঙে ফেলার সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়।

উল্লেখ্য, অবৈজ্ঞানিক উপায়ে এই পার্বত্য উপত্যকা জুড়ে উন্নয়নের কাজ হওয়ার ফলে এই ভূমি অবনমন বলে মনে করা হচ্ছে। পরিস্থিতি সরেজমিনে খতিয়ে দেখছেন বিশেষজ্ঞরা। এদিকে বিষয়টি নিয়ে জরুরি শুনানির আবেদন গিয়েছিল সুপ্রিম কোর্টে, যদিও দেশের শীর্ষ আদালত তা খারিজ করে দেয়। 

এদিকে, আজ যোশীমঠে সফর করেন উত্তরাখণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী পুষ্কর সিং ধামি। তিনি জানান, দেড় লাখ টাকার ত্রাণের ৫০ হাজার এখনই পরিবারগুলির হাতে তুলে দেওয়া হবে। উল্লেখ্য গোটা উপত্য়কার ৮৬ টি বাড়িকে চিহ্নিত করা হয়েছে বিপজ্জনক বলে। দেওয়া হয়েছে লাল রঙের ‘ক্রস’ চিহ্ন।  ১৩১ টি পরিবারের ১৪৫ জনকে স্থানান্তর করা হয়েছে। প্রশাসন বলছে, স্থানীয় হোটেলগুলি আশপাশের বিল্ডিংয়ের জন্যও বড়সড় উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে। ফলে শঙ্কার মেঘ থাকছে।

এই খবরটি আপনি পড়তে পারেন HT App থেকেও। এবার HT App বাংলায়। HT App ডাউনলোড করার লিঙ্ক https://htipad.onelink.me/277p/p7me4aup

 

 

 

বন্ধ করুন