বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > লাক্ষাদ্বীপে গোমাংস বিক্রি বন্ধের বিরোধিতায় সরব স্বয়ং বিজেপির ইউনিট সভাপতি
লাক্ষাদ্বীপের নয়া আইনের বিরোধিতায় সরব বিরোধীরা (ছবি সৌজন্যে পিটিআই)
লাক্ষাদ্বীপের নয়া আইনের বিরোধিতায় সরব বিরোধীরা (ছবি সৌজন্যে পিটিআই)

লাক্ষাদ্বীপে গোমাংস বিক্রি বন্ধের বিরোধিতায় সরব স্বয়ং বিজেপির ইউনিট সভাপতি

  • প্রশাসক প্রফুল প্যাটেলের একাধিক সিদ্ধান্তের বিরোধিতায় সরব হলেন লাক্ষাদ্বীপে বিজেপির সভাপতি মহম্মদ কাসিম।

লাক্ষাদ্বীপের প্রশাসকের একের পর এক বিতর্কিত সিদ্ধান্তের বিরোধিতায় সরব হয়েছেন কংগ্রেস এবং সিপিএম-এর নেতারা। এবার প্রশাসক প্রফুল প্যাটেলের একাধিক সিদ্ধান্তের বিরোধিতায় সরব হলেন লাক্ষাদ্বীপে বিজেপির সভাপতি মহম্মদ কাসিম। কাসিমের বক্তব্য, মানুষকে পাশে নিয়ে, তাদেরকে বুঝিয়ে এরম সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত। জানা গিয়েছে এই বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী অমিত শাহ এবং নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি লিখেছেন কাসিম।

মহম্মদ কাসিম বলেন, 'লাক্ষাদ্বীপে বহু মানুষই এই সিদ্ধান্তে বিরক্ত। এরকম ধরনের সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে সবসময় সাধারণ মানুষ এবং তাদের দ্বারা নির্বাচিত জন প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনা করা উচিত। আমি এই বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে চিঠি লিখেছি।'

এদিকে বিজেপির ইউনিট সভাপতির এই বেসুরে গান গাওয়ার প্রসঙ্গ এড়িয়ে গিয়েছেন ইউনিটের সহ সভাপতি। এই বিষয়ে তাঁর বক্তব্য, আমি মহম্মদ কাসিমের অবস্থানের বিষয়ে অবগত নই। এদিকে এই অস্থির পরিস্থিতিতে রাজনৈতিক তরজা তুঙ্গে চড়েছে শান্ত লাক্ষাদ্বীপে। এই আবহে কংগ্রেসের তরফে দাবি করা হয় যাতে লাক্ষাদ্বীপের প্রশাসককে সেই দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়।

উল্লেখ্য, কয়েকদিন আগে প্রফুল প্যাটেল জানিয়েছিলেন, এখন থেকে লাক্ষাদ্বীপে মদ বিক্রি হবে, গরুর মাংস খাওয়া যাবে না। এছাড়াও জমি অধিগ্রহণ, গুন্ডাদমন নিয়েও আইন আনার কথা বলেছিলেন প্রফুল প্যাটেল। যারপরই শুরু হয় বিতর্ক। প্রসঙ্গত, লাক্ষাদ্বীপ মুসলিম অধ্যুষিত হওয়ায় সেখানে মদ বিক্রি হয় না। পাশাপাশি গোমাংস সেখানকার মানুষের খাদ্যাভ্যাসের অংশ। তাই নয়া এই আইনের বিরোধিতায় সরব হয়েছেন কেরল এবং লাক্ষাদ্বীপের রাজনীতিবিদরা।

বন্ধ করুন