বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > দিনদুপুরে বিমানবন্দরে চিতাবাঘের হানায় আতঙ্ক, বনকর্মীদের চেষ্টায় সমস্যার সমাধান
বনকর্মীদের পেতে রাখা খাঁচায় ধরা পড়ল দেরাদুনের জলি গ্র্যান্ট বিমানবন্দরে ঢুকে পড়া চিতাবাঘ।
বনকর্মীদের পেতে রাখা খাঁচায় ধরা পড়ল দেরাদুনের জলি গ্র্যান্ট বিমানবন্দরে ঢুকে পড়া চিতাবাঘ।

দিনদুপুরে বিমানবন্দরে চিতাবাঘের হানায় আতঙ্ক, বনকর্মীদের চেষ্টায় সমস্যার সমাধান

  • কোনও ভাবে কাঁটাতারের বেড়া ডিঙিয়ে বিমানবন্দরে প্রবেশ করে এক চিতাবাঘ। আতঙ্কে দিশেহারা হয়ে পড়েন বিমানবন্দরের কর্মীরা।

বিমানবন্দরে বাঘের উপদ্রব। জিম করবেটের আমল নয়, গত মঙ্গলবার এমনই বিরল ঘটনার সাক্ষী থাকল দেরাদুনের জলি গ্র্যান্ট বিমানবন্দর। 

বন দফতরের মহকুমা আধিকারিক জি এস মারতোলিয়া জানিয়েছেন, মঙ্গলবার ভোরে কোনও ভাবে কাঁটাতারের বেড়া ডিঙিয়ে বিমানবন্দরে প্রবেশ করেছিল সদ্য তরুণ এক চিতাবাঘ। তাকে দেখে আতঙ্কে দিশেহারা হয়ে পড়েন বিমানবন্দরের কর্মীরা। খবর যায় বন দফতরের কাছে। 

এদিকে রানওয়েতে ওঠানামা করা বিমানের ইঞ্জিনের গর্জনে ভয় পেয়ে চিতাবাঘ গিয়ে লুকোয় টার্মিনাল বিল্ডিংয়ের কাছে পাইপের ভিতরে। সারাদিন সেখানেই সে আতঙ্কে কুঁকড়ে বসেছিল। 

রাতে শেষ বিমানটি উড়ে যাওয়ার পরে ধীরেসুস্থে পাইপ থেকে বাইরে বেরোয় চিতাবাঘ। আর তখনই সে ধরা পড়ে যায় বনকর্মীদের পেতে রাখা খাঁচায়। গোটা উদ্ধার প্রক্রিয়ায় সময় লেগেছে প্রায় ১০ ঘণ্টা, জানিয়েছেন আধিকারিক। 

বন দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, উদ্ধার করার পরে চিতাবাঘটিকে নিয়ে যাওয়া হয় দেরাদুন বন বিভাগের অন্তর্গত বড়কোট রেঞ্জে। সেখানে চিতাবাঘটিকে পরীক্ষা করার পরে জঙ্গলে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন দেরাদুনের বনাধিকারিক রাজীব ধীমান। 

প্রসঙ্গত, জলি গ্র্যান্ট বিমানবন্দরের তিন দিকে জঙ্গল থাকলেও এই প্রথম এত বড় মাংসাষী কোনও বন্যপ্রাণী সেখানে হানা দিল।

বন্ধ করুন