বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > সন্ত্রাসবাদীদের অনুপ্রবেশ কমছে, শান্তি ফিরলে উভয়েরই মঙ্গল, বলছেন সেনাপ্রধান
ভারত-পাকিস্তান সীমান্ত  (ফাইল ছবি)
ভারত-পাকিস্তান সীমান্ত  (ফাইল ছবি)

সন্ত্রাসবাদীদের অনুপ্রবেশ কমছে, শান্তি ফিরলে উভয়েরই মঙ্গল, বলছেন সেনাপ্রধান

  • কাশ্মীর সীমান্তে বার বার যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘনের অভিযোগ উঠেছিল পাকিস্তানের বিরুদ্ধে

বার বার লাইন অফ কন্ট্রোলে যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘনের অভিযোগ উঠেছে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে। সরকারি তথ্য মোতাবেক ২০২০র ফেব্রুয়ারি থেকে ২০২১ য়ের ফেব্রুয়ারি মাস পর্যন্ত বার বারই যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করেছে পাকিস্তান। তবে এবার ভারতের সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল মনোজ মুকুন্দ নরভানের দাবি, ‘জম্মু কাশ্মীরে সন্ত্রাসের বহর কমছে। এটাই বোঝা যাচ্ছে যে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ফিরছে কাশ্মীরে। তাৎপর্যপূর্ণভাবে পাকিস্তান থেকে সন্ত্রাসবাদীদের অনুপ্রবেশ কমছে’। এক আধিকারিকের দাবি গত তিন মাসে যে ৩০জন সন্ত্রাসবাদীকে নিকেশ করা হয়েছে তার মধ্যে একজনই বিদেশি। এটা থেকেই স্পষ্ট পাকিস্তানি সন্ত্রাসবাদীদের অনুপ্রবেশ রোধ করা সম্ভব হয়েছে। তবে এজন্য আরও অপেক্ষা করতে হবে কারণ তিন মাস খুবই কম সময়। দাবি এক আধিকারিকের। 

ভারতের সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল মনোজ মুকুন্দ নরভানের দাবি, ‘আমরা চাইছি যাতে যুদ্ধবিরতি বজায় থাকে।এর মাধ্যমে নিরাপত্তার পরিস্থিতিরও উন্নতি হবে। আগামী দিনে সাধারণ মানুষের পক্ষেও এটা ভালো হবে।’ প্রসঙ্গত গত ৫ বছর ধরেই সীমান্তে যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘনের ঘটনা ক্রমেই বেড়েছিল। ২০১৬তে এই সংখ্যাটা ছিল ৪৪৯টি, ২০১৭তে সংখ্যাটা ছিল ৮৮১টি, ২০১৮তে এই সংখ্যা ছিল ১ হাজার ৬২৯টি ও ২০১৯য়ে এই সংখ্যা ছিল ৩ হাজার ১৬৮টি। ২০১৩সালের ২৪শে ডিসেম্বর অমৃতসরের কাছে ওয়াঘা সীমান্তে বৈঠকে বসেছিলেন ভারত ও পাকিস্তানের সেনা প্রধানরা। মূলত নিয়ন্ত্রণ রেখায় শান্তি ফেরানোর লক্ষ্যে। এই আলোচনার পর প্রায় সাত মাস সেভাবে কোনও যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন হয়নি সীমান্তে। এমনটাই উঠে এসেছে তথ্যে।

 

বন্ধ করুন