বাড়ি > ঘরে বাইরে > পঙ্গপাল হানায় খাদ্যশষ্য নষ্ট হবে, সতর্ক করল কেন্দ্র
জয়পুরের কাছে পঙ্গপাল হানা
জয়পুরের কাছে পঙ্গপাল হানা

পঙ্গপাল হানায় খাদ্যশষ্য নষ্ট হবে, সতর্ক করল কেন্দ্র

খুব খারাপ সময় এল এই পঙ্গপালের ঝাঁক, বলছে কেন্দ্র। 

পঙ্গপাল হানার জেরে প্রভূত পরিমাণে খাদ্যশষ্য নষ্ট হয়ে যেতে পারে বলে সতর্ক করে দিয়েছে কেন্দ্র। পরিবেশ মন্ত্রকের ওয়াইল্ড লাইফ বিভাগের ইনস্পেকটর জেনারেল সৌমিত্র দাসগুপ্ত বলেন মরু পঙ্গপাল ঝাঁকে ঝাঁকে ভারতে আক্রমণ করেছে ও এর প্রভাব পড়বে ফসলের ওপর। 

যখন দেশ করোনার সঙ্গে লড়াই করছে, তখন পঙ্গপালের হানা খুব খারাপ সময় হল বলেই জানান সৌমিত্রবাবু। এই মুহূর্তে পঙ্গপাল রাজস্থান, গুজরাত, মহারাষ্ট্র, উত্তর প্রদেশ ও মধ্যপ্রদেশের আকাশ ছেয়ে যাচ্ছে। হাওয়ার দিক অনুযায়ী রাজধানীতে আসারও একটা সম্ভাবনা আছে। 

মন্ত্রকের আরেক কর্তার মতে, ক্রমশ পূর্বভারতের দিকে যাচ্ছে পঙ্গপাল ও খাদ্য নিরাপত্তার ওপর বড় প্রশ্ন তুলে দিচ্ছে এটি। সৌমিত্রবাবু বলেন যে পশ্চিম ভারতে পঙ্গপাল আসেই। নতুন কিছু নয়। কিন্তু এত সংখ্যায় আসে না। তিন দশকে এরকম একবারই পরিস্থিতি হয়। তবে তিনি জানান এই পরিস্থিতি সামলানোর দায়িত্ব কষিমন্ত্রকের। 

স্প্রে ছিটিয়ে কিছুটা যায় পঙ্গপাল। কিন্তু যেই সংখ্যায় দেশে এসেছে, তাতে চাষের মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে, বলেই সৌমিত্রবাবুর আশঙ্কা। রাজ্য সরকারগুলিকে দায়িত্ব নিতে হবে পঙ্গপালের হানা রুখতে, বলেন তিনি। 

পরিবেশমন্ত্রকের আরেক কর্তা বলেন যে দক্ষিণ ইরান ও দক্ষিণ-পশ্চিম থেকে আসছে এই পঙ্গপালগুলি। অতিবৃষ্টি ও সাইক্লোনের ফলেই এবার পঙ্গপালের হানার বাড়াবাড়ি বলে জানা যাচ্ছে। একই সঙ্গে, এবার মার্চে বেশি বৃষ্টি হওয়ার পঙ্গপালের দল আরও বেশি করে ভারতের দিকে চলে এসেছে, বলে মনে করা হচ্ছে। কৃষক সংস্থাগুলি বলছে রাজ্যগুলির কাছে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেই, কেন্দ্রকেই এগিয়ে আসতে হবে পঙ্গপাল নাশ করতে। 

পঙ্গপাল হানার জেরে প্রভূত পরিমাণে খাদ্যশষ্য নষ্ট হয়ে যেতে পারে বলে সতর্ক করে দিয়েছে কেন্দ্র। পরিবেশ মন্ত্রকের ওয়াইল্ড লাইফ বিভাগের ইনস্পেকটর জেনারেল সৌমিত্র দাসগুপ্ত বলেন মরু পঙ্গপাল ঝাঁকে ঝাঁকে ভারতে আক্রমণ করেছে ও এর প্রভাব পড়বে ফসলের ওপর। 

যখন দেশ করোনার সঙ্গে লড়াই করছে, তখন পঙ্গপালের হানা খুব খারাপ সময় হল বলেই জানান সৌমিত্রবাবু। এই মুহূর্তে পঙ্গপাল রাজস্থান, গুজরাত, মহারাষ্ট্র, উত্তর প্রদেশ ও মধ্যপ্রদেশের আকাশ ছেয়ে যাচ্ছে। হাওয়ার দিক অনুযায়ী রাজধানীতে আসারও একটা সম্ভাবনা আছে। 

মন্ত্রকের আরেক কর্তার মতে, ক্রমশ পূর্বভারতের দিকে যাচ্ছে পঙ্গপাল ও খাদ্য নিরাপত্তার ওপর বড় প্রশ্ন তুলে দিচ্ছে এটি। সৌমিত্রবাবু বলেন যে পশ্চিম ভারতে পঙ্গপাল আসেই। নতুন কিছু নয়। কিন্তু এত সংখ্যায় আসে না। তিন দশকে এরকম একবারই পরিস্থিতি হয়। তবে তিনি জানান এই পরিস্থিতি সামলানোর দায়িত্ব কষিমন্ত্রকের। 

স্প্রে ছিটিয়ে কিছুটা যায় পঙ্গপাল। কিন্তু যেই সংখ্যায় দেশে এসেছে, তাতে চাষের মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে, বলেই সৌমিত্রবাবুর আশঙ্কা। রাজ্য সরকারগুলিকে দায়িত্ব নিতে হবে পঙ্গপালের হানা রুখতে, বলেন তিনি। 

পরিবেশমন্ত্রকের আরেক কর্তা বলেন যে দক্ষিণ ইরান ও দক্ষিণ-পশ্চিম থেকে আসছে এই পঙ্গপালগুলি। অতিবৃষ্টি ও সাইক্লোনের ফলেই এবার পঙ্গপালের হানার বাড়াবাড়ি বলে জানা যাচ্ছে। একই সঙ্গে, এবার মার্চে বেশি বৃষ্টি হওয়ার পঙ্গপালের দল আরও বেশি করে ভারতের দিকে চলে এসেছে, বলে মনে করা হচ্ছে। কৃষক সংস্থাগুলি বলছে রাজ্যগুলির কাছে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেই, কেন্দ্রকেই এগিয়ে আসতে হবে পঙ্গপাল নাশ করতে। 

 

 

বন্ধ করুন