বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > 'পাবলিক সারভেন্টরা মুঘল যুগে বাস করতে পারেন না!' পুলিশকে কোন ইস্যুতে এমন ভর্ৎসনা আদালতের?
আদালত দিল চরম বার্তা। প্রতীকী ছবি (HT_PRINT)

'পাবলিক সারভেন্টরা মুঘল যুগে বাস করতে পারেন না!' পুলিশকে কোন ইস্যুতে এমন ভর্ৎসনা আদালতের?

  • বিচারপতি এস এম সুব্রহ্মণ্যম বলেন, এই ঘটনা 'সংবিধান ও দেশের গণতন্ত্রের ওপর থাপ্পড়ের সমান।' তিনি এও বলেন, 'দেশের ৭৫ বছরের স্বাধীনতার পর এখন লিখতে হচ্ছে ঔপনিবেশিকতা কীভাবে বাড়িগুলির ভিতর ঢপকে পড়েছে, উচ্চ পদস্থ পুলিশ কর্তাদের বাড়িতে এই ঘটনা ঘটছে।'

মাদ্রাজ হাইকোর্টের বিচারপতি এস এম সুব্রহ্মণ্যম বলছেন, এটা খুবই দুঃখজনক যে দেশ স্বাধীনতার ৭৫ বছর পূর্তি করতে চলেছে আর এখনও ঔপনিবেশিক মনোভাব ছাড়তে পারেননি তামিলনাড়ুর উচ্চপদস্থ পুলিশ কর্তারা। উল্লেখ্য, সিনিয়ার পুলিশ অফিসারদের বাড়িতে জুনিয়ারদের ঘরের কাজ করানো সংক্রান্ত মামলা নিয়ে মাদ্রাজ হাইকোর্ট তুমুল ভর্ৎসনা করে তামিলনাড়ু পুলিশকে।

বিচারপতি বলেন, এই ঘটনা 'সংবিধান ও দেশের গণতন্ত্রের ওপর থাপ্পড়ের সমান।' তিনি এও বলেন, 'দেশের ৭৫ বছরের স্বাধীনতার পর এখন লিখতে হচ্ছে ঔপনিবেশিকতা কীভাবে বাড়িগুলির ভিতর ঢপকে পড়েছে, উচ্চ পদস্থ পুলিশ কর্তাদের বাড়িতে এই ঘটনা ঘটছে।' তিনি বলেন, মূল্যবোধ ও দর্শনের দিক থেকে ভারতের সংবিধান প্রতিটি মানুষকে 'রাজা বা রানি' বলে বিবেচনা করে। সেক্ষেত্রে, 'কোনও পাবলিক সারভেন্ট মুঘল যুগে বাস করছেন এটা ভাবা যায়না।' তামিলনাড়ু পুলিশের ডিজিকে ১৮ অগাস্টের মধ্যে এই বিষয়ে একটি রিপোর্ট দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে কোর্ট। কোর্ট বলছে,'উর্দিতে থাকা পুলিশ অফিসারদের দাসত্বের আওতায় এনে তাঁদের উর্ধতর পুলিশ অফিসারদের বাড়িতে কাজ করানো বন্ধ হোক। এই রাস্তা বন্ধ হলে আদালত সংবিধানের আওতায় থেকে পদক্ষেপ করছে।'

আদালত এও জানিয়েছে যে, একটা বড় অংশের পুলিশ অফিসাররা আরদেলি হিসাবে কাজ করছেন। অনেক উচ্চ পদস্থ পুলিস অফিসাররা এই সিস্টেমের বাইরে যেতে পারেননি। তা নিয়েও আদালত কঠোর বার্তা দিয়েছে। প্রসঙ্গত, ১৯৭৯ সালের ৫ সেপ্টেম্বর এই আরদেলি সিস্টেমকে ভেঙে ফেলা হয় স্বাধীন ভারতের সংবিধান মেনে। তারপরও এমন ঘটনা চলতে থাকায় রীতিমতো ক্ষোভে ফেটে পড়েছে আদালত।

 

বন্ধ করুন