করোনার জেরে রাজস্ব হ্রাসের ফলে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি ও রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের বেতন ছাঁটাইয়ের সিদ্ধান্ত নিল মহারাষ্ট্র সরকার।
করোনার জেরে রাজস্ব হ্রাসের ফলে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি ও রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের বেতন ছাঁটাইয়ের সিদ্ধান্ত নিল মহারাষ্ট্র সরকার।

করোনা সংকটে সরকারি কর্মীদের বেতন ছাঁটাই মহারাষ্ট্রে, রেহাই 'গ্রুপ ডি' কর্মীদের

মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে থেকে শুরু করে গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্য, সকল নির্চিত জনপ্রতিনিধিদের মসিক বেতন ছাঁটাই হবে বলে জানিয়েছে মহারাষ্ট্র সরকার।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের জেরে উল্লেখযোগ্য হারে কমেছে রাজস্ব। সেই কারণে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি ও রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের বেতন ছাঁটাইয়ের সিদ্ধান্ত নিল মহারাষ্ট্র সরকার।

মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে থেকে শুরু করে গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্য, সকল নির্চিত জনপ্রতিনিধিদের মাসিক বেতন ছাঁটাই হবে বলে জানিয়েছে মহারাষ্ট্র সরকার। বেতন ছাঁটাইয়ের আওতায় পড়ছেন বিভিন্ন মন্ত্রকের সচিব এবং আধিকারিকরা। এ দিন রাজ্য প্রশাসনের তরফে এই ঘোষণা করেন উপ-মুখ্যমন্ত্রী অজিত পাওয়ার।

তবে ছাঁটাই থেকে রেহাই দেওয়া হয়েছে অফিস পিওন, সাফাইকর্মী এবং বিভিন্ন দফতরের সহকারী পদে কর্মরত ‘গ্রুপ ডি’ সরকারি কর্মীদের, জানিয়েছেন উপ-মুখ্যমন্ত্রী। এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করতে সমস্ত সরকারি কর্মী এবং কর্মী ও শ্রমিক সংগঠনগুলির সহায়তা পাওয়া যাবে বলে আশা প্রকাশ করেন পাওয়ার।

এ দিন দুপুরে মহারাষ্ট্রের মুখ্য সচিব অজয় মেহতা এক বিবৃতির মাধ্যমে জানিয়েছেন, রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের মার্চ মাসের বেতন পেতে কয়েক দিন দেরি হবে। ছাঁটাই হওয়া বেতন তাঁরা সংকট কেটে যাওয়ার পরে পাবেন বলেও জানিয়েছেন মুখ্য সচিব।

প্রসঙ্গত, Covid-19 এর মোকাবিলায় কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে সোমবার ২৫,০০০ কোটি টাকার আর্থিক প্যাকেজ দাবি করেন অজিত পাওয়ার। এর মধ্যে কর ও প্রস্তাবিত কেন্দ্রীয় অনুদান বাবদ অবিলম্বে ১৬,৬৫৪ কোটি টাকা বরাদ্দ করার জন্য তিনি কেন্দ্রীয় সরকারের প্রতি আবেদন জানান।

রাজ্য সরকারের সিদ্ধান্তকে সমর্থন জানিয়ে ইতিমধ্যে তাদের সমস্ত বিধায়ক ও সাংসদদের এক মাসের বেতন রাজ্য ত্রাণ তহবিলে দান করবে বলে ঘোষণা করেছে মহারাষ্ট্রের প্রথম সারির রাজনৈতিক দলগুলি।

মঙ্গলবার দুপুর ১টা পর্যন্ত মহারাষ্ট্রে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২২৫। মৃতের সংখ্যা আপাতত ১০।

বন্ধ করুন