পুলিশের তদন্তে জানা যায়, গত ১১ বছর ধরে ইঞ্জিনিয়ারিং পরীক্ষায় ফেল করা রবিই আসলে ‘নিশা’।
পুলিশের তদন্তে জানা যায়, গত ১১ বছর ধরে ইঞ্জিনিয়ারিং পরীক্ষায় ফেল করা রবিই আসলে ‘নিশা’।

আমি নিশা! ভুয়ো প্রোফাইল থেকে ফেসবুকে বৈষম্যমূলক পোস্ট, ধৃত ছত্তিশগড়ের যুবক

  • নিশা জিন্দাল নামের আড়ালে আসলে দুষ্কর্ম চালিয়ে গিয়েছে রবি পূজার নামে এক যুবক।

ভুয়ো প্রোফাইলের মাধ্যমে ফেসবুকে বৈষম্যমূলক পোস্ট প্রচারের অভিযোগে প্রাক্তন ইঞ্জিনিয়ারিং ছাত্র যুবককে গ্রেফতার করল ছত্তিশগড় পুলিশ।

সম্প্রতি নিশা জিন্দাল নামে এক তরুণীর ফেসবুক পেজে লাগাতার বৈষম্যমূলক পোস্টের কারণে পেজের মালিকের প্রোফাইল নিয়ে অনুসন্ধান শুরু করে পুলিশ। তদন্তে অভিযুক্তের বাড়ির ঠিকানা সংগ্রহ করে হানা দেওয়ার পরে জানা যায়, নিশা জিন্দাল নামের আড়ালে আসলে দুষ্কর্ম চালিয়ে যাচ্ছে রবি পূজার নামে এক যুবক। ওই পেজে ১০ হাজারের বেশি ফলোয়ার রয়েছেন।

টুইটারের কয়েকজন ইউজার জানিয়েছেন, গত ১১ বছর চেষ্টা চালিয়েও ইঞ্জিনিয়ারিং পরীক্ষায় পাশ করতে পারেনি পূজার। আইএএস অফিসার প্রিয়াঙ্কা শুক্লা টুইট করে জানিয়েছেন, ‘রায়পুর পুলিশ যখন সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বিরুদ্ধে আক্রমণ শাসানোর দায়ে নিশা জিন্দালকে গ্রেফতার করতে তাঁর বাড়ি পৌঁছয়, সেখানে পাওয়া যায় রবি পূজারকে। তদন্তে জানা যায়, গত ১১ বছর ধরে ইঞ্জিনিয়ারিং পরীক্ষায় ফেল করা রবিই আসলে ‘নিশা’।’

পুলিশের চাপে পড়ে ওই ফেসবুক পেজে নিজের ছবি পোস্ট করতে বাধ্য হয় রবি পূজার। সেই সঙ্গে ফলোয়ারদের কাছে জানাতে হয় যে, পেজটির মালিক আসলে সে-ই।

পুলিশের এই পদক্ষেপের প্রশংসা করে টুইট করেন ছত্তিশগড়ের মুখ্যমন্ত্রী ভূপেশ বাঘেল। তিনি লেখেন, ‘কোনও প্রতারককে ছাড়া হবে না। যে সমস্ত ব্যক্কতি সামাজিক সম্প্রীতি নষ্ট করার চেষ্টা করবেন, তাঁদের সবার পরিচয় ফাঁস করা হোক।’

গত শুক্রবার পূজারকে গ্রেফতার করেছে রায়পুর পুলিশ। তার বাড়ি থেকে বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে ল্যাপটপ ও একাধিক মোবাইল ফোন। পূজারের বিরুদ্ধে ধর্ম বিশ্বাসে আঘাত হানা ও সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা ছড়ানোর দায়ে মামলা করেছে পুলিশ।

বন্ধ করুন