বাড়ি > ঘরে বাইরে > শাশুড়িকে চা না-দেওয়ায় লাঠিপেটার পরে বধূর যৌনাঙ্গে লঙ্কাগুঁড়ো ছিটিয়ে ‘শাস্তি’ দিল স্বামী
বধূকে লাঠিপেটার পরে যৌনাঙ্গে লঙ্কার গুঁড়ো ছিটিয়ে ‘শাস্তি দিলেন’ স্বামী। 
বধূকে লাঠিপেটার পরে যৌনাঙ্গে লঙ্কার গুঁড়ো ছিটিয়ে ‘শাস্তি দিলেন’ স্বামী। 

শাশুড়িকে চা না-দেওয়ায় লাঠিপেটার পরে বধূর যৌনাঙ্গে লঙ্কাগুঁড়ো ছিটিয়ে ‘শাস্তি’ দিল স্বামী

  • আমদাবাদে পুলিশের কাছে স্বামীর বিরুদ্ধে নিগ্রহের অভিযোগ জানিয়েছেন বছর তেইশের নিগৃহীতা।

শাশুড়িকে চা দিতে অস্বীকার করায় বধূকে লাঠিপেটার পরে যৌনাঙ্গে লঙ্কার গুঁড়ো ছিটিয়ে ‘শাস্তি দিলেন’ স্বামী। থানায় অভিযোগ জানালেন যুবতী।

বৃহস্পতিবার আমদাবাদে পুলিশের কাছে স্বামীর বিরুদ্ধে নিগ্রহের অভিযোগ জানিয়েছেন বছর তেইশের ওই বধূ। তাঁর দাবি, হিন্দু স্ত্রী-আচার অনুযায়ী সে দিন অরন্ধন পালন করবেন বলে বুধবারই বাড়ির জন্য সব রান্নাবান্না সেরে রেখেছিলেন। তাই পরের দিন সকালে স্বামী যখন তাঁর মায়ের জন্য চা বানানোর ফরমায়েশ দেন, তখন তাতে রাজি হননি যুবতী।

এতে ক্ষিপ্ত স্বামী প্রথমে তাঁকে দিয়ে বেধড়ক মারধর করেন। এর পরে শাশুড়ির চায়ের তৃষ্ণা মেটাতে বাড়ির বাইরে বেরিয়ে চা-দোকানের উদ্দেশে হাঁটতে থাকেন বধূ। তাঁর পিছু নেন স্বামী ও শাশুড়ি। মাঝপথে তাঁকে বাধা দিয়ে ফের মাটিতে ফেলে শুরু হয় মারধর। 

এতেই না থেমে যুবতীকে টেনে-হিঁচড়ে বাড়ি ফিরিয়ে আনা হয়। সেখানে তাঁকে মায়ের দেওয়া লাঠি দিয়ে মারতে থাকেন স্বামী, দাবি যুবতীর। শেষে তাঁর যৌনাঙ্গে ছিটিয়ে দেওয়া হয় গুঁড়ো লঙ্কা। 

বধূর দাবি, সন্তান জন্মানোর পর থেকেই তাঁকে নিয়মিত শারীরিক ও মানসিক নিপীড়ন করেন স্বামী ও শাশুড়ি। তবে এ দিনের ঘটনা সবকিছু ছাপিয়ে যাওয়ার পরেই পুলিশে অভিযোগ জানিয়েছেন তিনি।

বন্ধ করুন