বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > কবর খুঁড়ে মায়ের পচা গলা দেহ নিয়ে বেডরুমে হাজির সন্তান! ত্রস্ত এলাকাবাসী
কবর খুঁড়ে মায়ের পচা গলা দেহ নিয়ে বেডরুমে হাজির সন্তান, ত্রস্ত এলাকাবাসী। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য হিন্দুস্তান টাইমস)
কবর খুঁড়ে মায়ের পচা গলা দেহ নিয়ে বেডরুমে হাজির সন্তান, ত্রস্ত এলাকাবাসী। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য হিন্দুস্তান টাইমস)

কবর খুঁড়ে মায়ের পচা গলা দেহ নিয়ে বেডরুমে হাজির সন্তান! ত্রস্ত এলাকাবাসী

  • একদিন দেখা যায়, কবরের বাইরের দিক খুঁড়ে সেখানে একটি পাইপ লাগাচ্ছেন ছেলে। প্রশ্ন করলে জানা যায়, যাতে কবরের ভিতর মায়ের কাছে খাবার জল পৌঁছে যায়, তার জন্য এমন বন্দোবস্ত করছেন তিনি।

কয়েক বছর আগে মধ্য কলকাতার রবিনসন স্ট্রিটকাণ্ড এখনও আতঙ্কের সঞ্চার ঘটায় বহু জনের মনেই। এবার খানিকটা সেই ধরনের ঘটনাই ঘটে গেল তামিলনাড়ুর পেরাম্বালুরে। সেখানে সদ্য এক মহিলার শেষকৃত্য সম্পন্ন করেছে পুলিশ। তবে খবর শেষকৃত্য নিয়ে নয়,  খবর এই শেষকৃত্যের আগের ঘটনাকে কেন্দ্র করে। এই মহিলার মৃতদেহ নিয়ে তাঁর সন্তানের কর্মকাণ্ড ঘিরে কার্যত গত কয়েকদিন ধরে ত্রস্ত ছিল এলাকাবাসী। ঘটনা চরমে ওঠে, যেদিন তাঁর সন্তান মায়ের কবর খুঁড়ে তাঁর পচাগলা মৃতদেহ নিয়ে আসেন বাড়িতে। এরপর সেই দেহ নিয়ে সোজা ঢুকে পড়েন বেডরুমে!

এলাকাবাসীদের দাবি, প্রায় ১০ মাস ধরে মায়ের কবরের পাশে এক মনে বসতে থাকতে দেখা যেত তাঁর ছেলেকে। এরপর একদিন দেখা যায়, কবরের বাইরের দিক খুঁড়ে সেখানে একটি পাইপ লাগাচ্ছেন ছেলে। প্রশ্ন করলে জানা যায়, যাতে কবরের ভিতর মায়ের কাছে খাবার জল পৌঁছে যায়, তার জন্য এমন বন্দোবস্ত করছেন তিনি। এখানেই শেষ নয়, বৃষ্টির দিনে ওই কবর যাতে খারাপ না হয়, তার জন্য কবরের উপর চাল ঢেলে দিয়ে তা শুকিয়ে নেওয়ার বন্দোবস্ত করতেন ওই ব্যক্তি। এরপর ঘটে যায় চরম কাণ্ডটি। গত ২৪ ডিসেম্বর ওই ব্যক্তি তাঁর মায়ের পচাগলা মৃতদেহ সোজা কবর থেকে তুলে অনে ঘরের ভিতর নিয়ে আসেন। এই ঘটনায় তাঁর পরিবার সহ এলাকাবাসী সকলেই ত্রস্ত হয়ে পড়েন। ঘর থেকে পচা গন্ধ বাইরে ছড়াতে থাকে। খবর দেওয়া হয় পুলিশকে।

পুলিশ জানিয়েছ, মৃতদেহ থেকে সমস্ত চামড়া উঠে গিয়েছে প্রায়। কেবল কঙ্কালের অংশই দেখা যাচ্ছে। এদিকে, ওই ব্যক্তি যখন দেখেন ঘরে পুলিশ ঢুকছে তাঁর মায়ের দেহ নিতে, তিনি তখন পুলিশকে আটকাতে যান বলে খবর। এরপর আত্মীয় পরিজনরা বহু কষ্টে তাঁকে বুঝিয়ে ঘটনাস্থল থেকে সরিয়ে নিয়ে গেলে পুলিশ ওই দেহ নিয়ে যেতে পারে। এরপর দেহ ময়নাতদন্তের জন্য যায়। তারপরই সেই দেহের শেষকৃত্য সম্পন্ন করে পুলিশ। এদিকে, যে ব্যক্তিকে ঘিরে এই ঘটনা তিনি সদ্য মাতৃহারা হওয়ার বহু বছর আগে মাত্র ১৬ বছর বয়সে বাবাকে হারিয়েছেন বলে খবর। তার পর থেকেই তাঁর এমন মানসিক অবস্থা বলে জানা গিয়েছে। জানা যায়, বেকার এই যুবক বাবা মারা যাওয়ার পর থেকে তাঁর মায়ের একমাত্র ভরসা ছিলেন। এদিকে, গোটা ঘটনার পর ওই ব্যক্তিকে আপাতত চিকিৎসাধীন রাখা হয়েছে।

বন্ধ করুন