বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > Mannequin's faces are covered: ম্যানিকুইনের মুখও ঢেকে রাখতে হবে, অন্যথায় শাস্তি, নতুন ফতোয়া তালিবান সরকারের

Mannequin's faces are covered: ম্যানিকুইনের মুখও ঢেকে রাখতে হবে, অন্যথায় শাস্তি, নতুন ফতোয়া তালিবান সরকারের

দোকানে রাখা নকল মেয়েদের মাথাপ্লাস্টিক ব্যাগ দিয়ে মুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে (Twitter @SurenderS199010)

Mannequin's faces are covered with cloths and foils in Afghanistan as per new mandate by Taliban: ক্ষমতায় আসার পর থেকেই একের পর এক নতুন ফতোয়া জারি করেছে তালিবান সরকার। রীতিমতো নারী স্বাধীনতা নিয়ে বারবার প্রশ্ন উঠেছে তালিবান সরকারের বিরুদ্ধে। এবার নতুন করে প্রশ্ন তুলে অভিনব নিদান দিল সে দেশের সরকার।

আফগানিস্তানে দ্বিতীয় দফার রাজত্ব শুরু করার পর থেকেই এক এক করে নতুন ফতোয়া জারি করছে সে দেশের তালিবান সরকার। প্রথম থেকেই নারীদের স্বাধীনতার একাধিক বিষয়ের ঘোরতর বিরোধী তারা। ২০২১ সালের অগাস্ট মাসে ক্ষমতায় আসার পর থেকেই নানারকম কট্টরপন্থী ফতোয়া চালু করেছিল সরকার। মেয়েদের বিশ্ববিদ্যালয়ে যাওয়া নিষিদ্ধ করার পাশাপাশি কাজের ক্ষেত্রেও তদের স্বাধীনতা খর্ব করে দেওয়া হয়। এবারে মেয়েদের আদলে তৈরি কাপড়ের দোকানের বিপণনী স্ট্যাচুতেও ফতোয়া জারি করল তালিবান। গতবছরে জারি করা এই ফতোয়া অনুযায়ী, দোকানের সমস্ত ম্যানিকুইনের (অর্থাৎ যেগুলির গায়ে পোশাক পরিয়ে প্রদর্শনের জন্য রাখা হয়) মাথা কেটে নেওয়ার নিদান দিয়েছিল তালিবান সরকার। তবে পরে নিয়ম কিছুটা ‘শিথিল’ করা হয়। ম্যানিকুইনগুলির মাথা না কেটে সেগুলি অ্যালুমিনিয়াম ফয়েল বা কাপড় দিয়ে ভালো করে মুড়িয়ে দিতে বলা হয়। তালিবানের নীতি অনুযায়ী, মেয়েদের মুখ ঢেকে পথে বেরোনোর ফতোয়া কার্যকর করতেই এই বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

সম্প্রতি সমাজ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের কিছু দোকানের ছবি। সেখানেই দেখা যায়,পরপর সারি দিয়ে দোকানে রাখা নকল মেয়েদের মাথা অ্যালুমিনিয়াম ফয়েল, প্লাস্টিক ব্যাগ ও কাপড় দিয়ে মুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। এক দোকানদার সংবাদ সংস্থা এপি-কে জানায়, তালিবানি নিয়ম মানা হচ্ছে কিনা তা দেখার জন্য নিয়মিত সরকারের তরফে লোক পাঠানো হয়। তালিবানিদের কথায়, মেয়েদের মুখ এমন উন্মুক্তভাবে দেখানোর ফলে ইসলামের মৌলিক রীতিনীতি লঙ্ঘিত হচ্ছে। সেই রীতি রক্ষা করতেই এমন পদক্ষেপ নিল দ্বিতীয় দফার সরকার।

প্রসঙ্গত, ক্ষমতায় আসার পর থেকেই বিভিন্ন বিষয়ে মেয়েদের স্বাধীন অস্তিত্ব গভীর প্রশ্নের মুখে এসে দাঁড়িয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ে মেয়েদের উচ্চশিক্ষা ক্ষমতায় আসার পরেই বাতিল করে দেওয়া হয়। বাতিল করা হয় কোন এনজিও-এর হয়ে মেয়েদের কাজ করার অধিকার। এমনকী হাসপাতালে কোনও পুরুষ চিকিৎসক মহিলা রোগীর চিকিৎসা করতে পারবে না, এমন ফতোয়া জারি করা হয় সরকারের তরফে। কেউ নিয়ম লঙ্ঘন করছে কিনা তা দেখার জন্য নিয়মিত সরকারের তরফে লোকও পাঠানো হয়। তালিবানের এই কার্যকলাপের কথা সামাজিক মাধ্যমে পোস্ট করে একজন লেখেন, তালিবানের দ্বিতীয় দফার সরকার এমনই উন্নত যে ম্যানিকুইনদের মুখও ঢেকে রাখার নিদান দিচ্ছে তারা।

এই খবরটি আপনি পড়তে পারেন HT App থেকেও। এবার HT App বাংলায়। HT App ডাউনলোড করার লিঙ্ক https://htipad.onelink.me/277p/p7me4aup

 

 

বন্ধ করুন