বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > 'টাকা দাও, নম্বর নাও,' চক্রের পর্দা ফাঁস, গ্রেফতার স্কুলের প্রিন্সিপাল সহ ২জন
নম্বর বাড়িয়ে দেওয়ার চক্রের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ধৃত ২  (প্রতীকী ছবি)
নম্বর বাড়িয়ে দেওয়ার চক্রের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ধৃত ২  (প্রতীকী ছবি)

'টাকা দাও, নম্বর নাও,' চক্রের পর্দা ফাঁস, গ্রেফতার স্কুলের প্রিন্সিপাল সহ ২জন

  • অর্থের বিনিময়ে তারা দশম শ্রেণির বোর্ডের পরীক্ষায় নম্বর বাড়িয়ে দেওয়ার টোপ দিয়েছিল বলে অভিযোগ। এদিকে অসম সরকার এবার অতিমারি পরিস্থিতির জেরে দশম ও দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষা বাতিল করেছে।

টাকার বিনিময়ে নম্বর বাড়িয়ে দেওয়ার চক্রের সন্ধান পেল অসম পুলিশ।  অসমের কামরূপ জেলার পুলিশ এই অসাধু চক্রে জড়িত থাকার অভিযোগে দুজনকে গ্রেফতার করেছে। অর্থের বিনিময়ে তারা দশম শ্রেণির বোর্ডের পরীক্ষায় নম্বর বাড়িয়ে দেওয়ার টোপ দিয়েছিল বলে অভিযোগ। এদিকে অসম সরকার এবার অতিমারি পরিস্থিতির জেরে দশম ও দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষা বাতিল করেছে। গত বছরের পরীক্ষার ফলাফল ও আভ্যন্তরীন মূল্যায়ণের মাধ্যমে এই বোর্ডের ফলাফল বের করা হবে। এই মাসের শেষের দিকেই ফলাফল বের হবে।

এদিকে শনিবার রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে অভিযানে নামে পুলিশ। এরপরই স্কুল পরিদর্শকের দফতরের এক ডাটা এন্ট্রি অপারেটর প্রশান্ত দাস ও মাজারটপ হায়ার সেকেন্ডারি স্কুলের অধ্যক্ষ আক্কাস আলিকে এই চক্রের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছে। মুখ্য়মন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা বলেন, 'জেলা স্কুল পরিদর্শকের দফতরে কিছু অনিয়মের অভিযোগ এসেছিল। এরপরই কামরূপ জেলায় অভিযানে নামা হয়। একাধিক স্কুল পরিদর্শককে আতস কাঁচের নীচে রাখা হয়েছে। যদি কেউ ছাত্রছাত্রীদের নম্বর বদলে দেওয়ার চেষ্টা করেন তবে কড়া পদক্ষেপ নেওয়া হবে।' পুলিশ সূত্রে খবর, স্কুল পরিদর্শকের দফতরের কয়েকজন একাধিক স্কুল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করে এই নম্বর বৃদ্ধির চক্র চালাচ্ছিল। টাকার বিনিময়ে এই কাজ করা হচ্ছিল। এব্যাপারে কড়া পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

 

বন্ধ করুন