বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > খুড়তুতো ভাই-বোনের মধ্যে বিয়ে বেআইনি, জানাল পঞ্জাব ও হরিয়ানা হাইকোর্ট
খুড়তুতো ভাই-বোনের মধ্যে বিয়ে বেআইনি, জানাল পঞ্জাব ও হরিয়ানা হাইকোর্ট। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই) 
খুড়তুতো ভাই-বোনের মধ্যে বিয়ে বেআইনি, জানাল পঞ্জাব ও হরিয়ানা হাইকোর্ট। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই) 

খুড়তুতো ভাই-বোনের মধ্যে বিয়ে বেআইনি, জানাল পঞ্জাব ও হরিয়ানা হাইকোর্ট

  • সরকারি আইনজীবী সওয়াল করেন, যুগলকে বিয়ের অনুমতি দেওয়া না হলে ‘লিভ-ইন রিলেশনশিপ’-এ থাকার প্রশ্নই ওঠে না। কারণ ‘অনৈতিক’ এবং সমাজে ‘গ্রহণযোগ্য’ নয়।

খুড়তুতো ভাই-বোনের মধ্যে বিয়ে বেআইনি। এমনটাই জানাল পঞ্জাব ও হরিয়ানা হাইকোর্ট। মামলাটির পরবর্তী শুনানি হবে আগামী বছরের ১১ জানুয়ারি।

গত ১৮ অগস্ট লুধিয়ানায় একটি থানায় ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৬৩ ধারা (অপরহণ) এবং ৩৬৬ এ (নাবালিকাকে উপর কর্তৃত্ব) ধারায় ২১ বছরের এক যুবকের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছিল। সেই মামলায় আগাম জামিনের আর্জি জানিয়েছিলেন ওই যুবক। পিটিশনে তিনি দাবি করেন, ওই নাবালিকার সঙ্গে ‘লিভ-ইন রিলেশনশিপ’-এ (সহবাস) আছেন। 

বিচারপতি অরবিন্দ সিং সাঙ্গোয়ানের বেঞ্চ বলে, ‘বিভিন্ন পক্ষের আইনজীবীদের বক্তব্য শোনার পর আমি জানতে পেরেছি, আবেদনকারী এটা জানাননি যে তিনি (নাবালিকার) খুড়তুড়ো দাদা। তাই সে (নাবালিকা) ১৮ বছর হলেই তাঁরা বিয়ে করবেন বলে যে আর্জি জানানো হয়েছে, তা বেআইনি।’

আগেই ওই যুবক হাইকোর্টে জানিয়েছিলেন, নিরাপত্তা এবং স্বাধীনতার জন্য রিট পিটিশন দাখিল করেছিলেন তাঁরা। সেপ্টেম্বরে তা মঞ্জুর করেছিল আদালত। নাবালিকা জানিয়েছিলেন, বাবা-মা ছেলেদের ভালোবাসেন। তাঁকে অবহেলা করা হত। তাই তিনি নিজের বন্ধুর (আবেদনকারী) সঙ্গে থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। বাবা-মা হেনস্থা করে তাঁদের (নাবালিকা এবং আবেদনকারী) মানসিক শান্তি বিঘ্নিত করতে পারেন বলে আশঙ্কা করছেন তিনি। কর্তৃপক্ষকে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়ে সেই পিটিশনের নিষ্পত্তি করেছিল আদালত।

সরকারি আইনজীবী অবশ্য আবেদনকারীর জামিনের আর্জির বিরোধিতা করেন। তিনি জানান, রিট পিটিশনের আগেই নাবালিকার বাবা-মা এফআইআর দায়ের করেছিলেন। ওই যুগল আদতে খুড়তুড়ো ভাই এবং তাঁদের বাবারা হলেন ভাই। তাঁদের মামলাও হিন্দু বিবাহ আইনের আওতায় পড়ছে। যে আইন অনুযায়ী, সরাসরি খুড়তুতো ভাই-বোনের মধ্যে বিয়ে হয় না। একইসঙ্গে তিনি দাবি করেন, যুগলকে বিয়ের অনুমতি দেওয়া না হলে ‘লিভ-ইন রিলেশনশিপ’-এ থাকার প্রশ্নই ওঠে না। কারণ ‘অনৈতিক’ এবং সমাজে ‘গ্রহণযোগ্য’ নয়।

বন্ধ করুন