বাড়ি > ঘরে বাইরে > উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে অপব্যাখ্যা হচ্ছে- চিনের সীমান্ত অতিক্রম নিয়ে মোদীর মন্তব্যের সাফাই পিএমও-র
সর্বদলীয় বৈঠক 
সর্বদলীয় বৈঠক 

উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে অপব্যাখ্যা হচ্ছে- চিনের সীমান্ত অতিক্রম নিয়ে মোদীর মন্তব্যের সাফাই পিএমও-র

কোনও রকমের উদ্দেশ্যপ্রণোদিত প্রচারে দেশবাসীর একতা ভাঙা যাবে না, বলে জানিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর দফতর

সীমান্ত পেরোয়নি চিন, শুক্রবার সর্বদলীয় বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্যের পর রাজনৈতিক বিতর্ক শুরু হয়েছে। ঠিক কোথায় সংঘর্ষ হল, কেন ভারতের ২০জন জওয়ান প্রাণ হারালেন সেই প্রশ্ন ওঠাতে শুরু করেছে বিরোধীরা। ভারত কি চিনকে নিজের জমি ছেড়ে দিল, সেই প্রশ্ন করেছেন প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীর। সাঁড়াশি আক্রমণের সামনে তড়িঘড়ি মোদীর বক্তব্যের স্পষ্টীকরণ দিল প্রধানমন্ত্রীর অফিস। 

পিএমও থেকে বলা হয়েছে যে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের অপব্যাখ্যা করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী এটা বলেছেন সে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা পেরনোর কোনও চেষ্টা করলে কড়া হাতে আটকানো হবে । আগে যে সেটা হত না, এখন হচ্ছে, সেটাও বলেছিলেন মোদী। 

বিবৃতিতে বলা হয়েছে যে সর্বদলীয় বৈঠকে এটা বলা হয় যে অনেক সংখ্যক চিনা সৈনিক প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় এসে গিয়েছিলেন। সেই হিসাবেই প্রতিক্রিয়া দিয়েছে ভারত। ১৫ জুন সংঘর্ষ হয়েছিল কারণ চিন সীমান্তের ঠিক এপারে পোস্ট বানাতে চাইছিল ও বলা সত্ত্বেও তাদের গতিবিধি সরায়নি। 

যেই বক্তব্য নিয়ে বিতর্ক, সেটি নিয়েও সাফাই দেওয়ার চেষ্টা করেছে পিএমও। বিবৃতিতে বলা হয়েছে মোদী যে বলেছেন যে প্রকৃত সীমান্তের এপারে কোনও চিনা সৈন্য নেই, সেটা ভারতীয় সৈন্যদের বীরত্বের কারণেই সম্ভব হয়েছে। ১৬ বিহার রেজিমেন্টের সেনাদের আত্নত্যাগের ফলেই ওদিন চিনের সৈন্যরা প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা পেরিয়ে ঢুকতে পারেনি ও কোনও পোস্ট ওখানে তৈরী করতে পারেনি, বলে জানিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর দফতর। 

ঘুরিয়ে কংগ্রেসকে আক্রমণ করে বিবৃতিতে বলা হয়েছে যে দেশবাসী ভালোই জানে কীভাবে গত ৬০ বছরে ৪৩ হাজার বর্গ কিমি জমি ভারতের হাত থেকে চলে গিয়েছে। কোনটা ভারতীয় ভূমি সেটা মানচিত্র থেকেই স্পষ্ট ও কোনও রকম ভাবে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখার একতরফ কোনও পরিবর্তন ভারত মেনে নেবে না, বলেও জানিয়ে দিয়েছে ভারত।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, যখন শহিদরা মারা গিয়েছে তখনও বিতর্ক তৈরী করে সেনাবাহিনীর মনোবল দুর্বল করা হচ্ছে। তবে কোনও রকমের উদ্দেশ্যপ্রণোদিত প্রচারে দেশবাসীর একতা ভাঙা যাবে না, বলে জানিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর দফতর। 

তবে পিএমও-র এই সাফাইয়ের পর বিরোধীদের আক্রমণের ঝাঁঝ কমবে, এমনটা মনে করছেন না রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। চিনের বিদেশমন্ত্রীকে বলা ভারতীয় বিদেশমন্ত্রীর দেওয়া বিস্তারিত বিবৃতিটি তারা হাতিয়ার করবেন, বলে মনে করা হচ্ছে। 

বন্ধ করুন