বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > Modi In Germany: ‘২০২৪-এও তোমাকে চাই...’, বার্লিনের অনুষ্ঠানে উঠল ‘মোদী, মোদী’ রব
বার্লিনের পটসডেমার প্ল্যাটজে থিয়েটারে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (PTI)
বার্লিনের পটসডেমার প্ল্যাটজে থিয়েটারে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (PTI)

Modi In Germany: ‘২০২৪-এও তোমাকে চাই...’, বার্লিনের অনুষ্ঠানে উঠল ‘মোদী, মোদী’ রব

  • Modi In Germany: বার্লিনের পটসডেমার প্ল্যাটজে থিয়েটারে এসে ড্রাম বাজাতে দেখা যায় প্রধানমন্ত্রী মোদীকে। সেখানে তিনি প্রবাসী ভারতীয়দের সন্তানদের সঙ্গে দেখা করেন ছবি তোলেন। তাদের সঙ্গে বেশ কিছুক্ষণ সময় কাটান প্রধানমন্ত্রী।

সোমবার বার্লিনে প্রবাসী ভারতীয়দের এক অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। প্রায় ১৬০০ জন প্রবাসী ভারতীয় সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। সেই অনুষ্ঠানে বক্তৃতা রাখেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। আর সেই অনুষ্ঠানেই প্রবাসীদের গলায় শোনা গেল মোদী মোদী রব। গতকালকের অনুষ্ঠানে স্লোগান উঠতে থাকে, ‘টোয়েন্টি-টোয়েন্টিফোর, মোদী ওয়ান্স মোর’ (২০২৪ সালেও মোদীকে চাই)। (আরও পড়ুন: ‘নতুন ভারত ঝুঁকি নিতে জানে, গড়তে জানে’, জার্মানিতে দাঁড়িয়ে বার্তা মোদীর

এদিকে ভারতীয়দের সম্বোধন করতে বার্লিনের পটসডেমার প্ল্যাটজে থিয়েটারে আসার সাথে সাথে প্রধানমন্ত্রী মোদীকে দেখা যায় একটি ড্রাম বাজাতে। সেখানে তিনি প্রবাসী ভারতীয়দের সন্তানদের সঙ্গে দেখা করেন ছবি তোলেন। তাদের সঙ্গে বেশ কিছুক্ষণ সময় কাটান প্রধানমন্ত্রী। পরে বক্তৃতা রাখার সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি ভাগ্যবান যে আমি জার্মানিতে 'মা ভারতী'র সন্তানদের সঙ্গে দেখা করার সুযোগ পেয়েছি। আপনাদের সবার সঙ্গে দেখা করে খুব ভালো লাগছে। আপনারা অনেকেই জার্মানির বিভিন্ন শহর থেকে বার্লিনে এসেছেন।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আজ আমি এখানে আমার সম্পর্কে বা মোদী সরকারের কথা বলতে আসিনি। আমি আপনাদের মতো কোটি কোটি ভারতীয়দের ক্ষমতা সম্পর্কে কথা বলতে চাই এবং তাদের প্রশংসা করতে চাই। আমি যখন কোটি কোটি ভারতীয়দের কথা বলি, তাতে শুধু দেশে বসবাসকারী মানুষদের উল্লেখ করি না, বরং এখানে যারা বসবাস করেন তাদেরও অন্তর্ভুক্ত করি।’

সোমবার মোদী ভারতীয়দের উন্নতির খতিয়ান তুলে ধরে বলেন, ‘ভারত ঝুঁকি নেয়, উদ্ভাবন করে। আমার মনে আছে যে ২০১৪ সালের দিকে, আমাদের দেশে মাত্র ২০০ থেকে ৪০০টি স্টার্টআপ ছিল। আজ, দেশে ৬৮ হাজারেরও বেশি স্টার্টআপ রয়েছে। আজ যেভাবে ভারতে শাসন ব্যবস্থায় প্রযুক্তি অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে, তাতে নতুন ভারতের রাজনৈতিক সদিচ্ছা দেখা যাচ্ছে... এখন কোনও প্রধানমন্ত্রীকে বলতে হবে না যে আমি দিল্লি থেকে ১ টাকা পাঠাই কিন্তু মাত্র ১৫ পয়সা পৌঁছায় জনগণের কাছে।’

 

বন্ধ করুন