বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > নিরপেক্ষ তদন্তের স্বার্থেই অপসারিত মুম্বইয়ের পুলিশ কমিশনার : অনীল দেশমুখ
ফাইল ছবি : হিন্দুস্তান টাইমস (Hindustan Times)
ফাইল ছবি : হিন্দুস্তান টাইমস (Hindustan Times)

নিরপেক্ষ তদন্তের স্বার্থেই অপসারিত মুম্বইয়ের পুলিশ কমিশনার : অনীল দেশমুখ

গত ২৫ ফেব্রুয়ারি মুকেশ অম্বানির বাসভব অ্যান্টিলার সামনে থেকে উদ্ধার হয় বিস্ফোরক। তাঁর সুবিশাল বাসভবনের সামনেই একটি স্করপিও গাড়ি থেকে বিস্ফোরক মেলে। এই ঘটনার পেছনে কাদের হাত রয়েছে তারই তদন্তে নেমেছে এনআইএ।

রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে নয়, নিরপেক্ষ তদন্তের স্বার্থেই অপসারণ। মুম্বইয়ের পুলিশ কমিশনার পরমবীর সিং-এর অপসারণের প্রসঙ্গে এমনটাই বললেন মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অনীল দেশমুখ। পরমবীর সিং-এর কমিশনারেটের একাধিক পুলিশ কর্তার বিরুদ্ধে গুরুতর অপরাধের তদন্তে নিরপেক্ষতা প্রয়োজন। আর সেই কারণেই তাঁকে পদচ্যুত করা হয়েছে বলে দাবি অনীলের। এ নিয়ে বিরোধীদের তোলা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যর দাবিও উড়িয়ে দেন তিনি।

মুম্বই পুলিশের ক্রাইম ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের প্রধান সচিন ভেজকেও পদচ্যুত ও গ্রেফতার করা হয়েছে। গত মাসে মুকেশ অম্বানির বাসভবনের সামনে থেকে গাড়িভর্তি বিস্ফোরক উদ্ধারের ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগ উঠেছে তাঁর বিরুদ্ধে।

'মুম্বইয়ের পুলিশ কমিশনারের বদলির উদ্দেশ্য একটাই। তদন্তে নিরপেক্ষতা। এনআইএ ও রাজ্যের আতঙ্কবাদ-দমন শাখার তদন্তে যাতে কোনও প্রভাব না পড়ে তার জন্যই এমন সিদ্ধান্ত। মুখ্যমন্ত্রী উদ্ভব ঠাকরের নেতৃত্বে একটি বৈঠকেই সম্মিলিতভাবে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে,' বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের এমনটাই জানালেন অনীল দেশমুখ।

গত ২৫ ফেব্রুয়ারি মুকেশ অম্বানির বাসভব অ্যান্টিলার সামনে থেকে উদ্ধার হয় বিস্ফোরক। তাঁর সুবিশাল বাসভবনের সামনেই একটি স্করপিও গাড়ি থেকে বিস্ফোরক মেলে। এই ঘটনার পেছনে কাদের হাত রয়েছে তারই তদন্তে নেমেছে এনআইএ।

অন্যদিকে মুম্বই পুলিশের সন্ত্রাসদমন শাখার তদন্ত অন্য একটি বিষয়ে। থানের ব্যবসায়ী মনসুখ হিরণের মৃত্যুর তদন্তভার তাঁদের হাতে। প্রসঙ্গত, যে স্কর্পিও থেকে বোমা উদ্ধার হয়, তার সঙ্গেও জড়িয়েছে মনসুখের নাম।

মহারাষ্ট্র পুলিশ দুর্দান্ত কাজ করছে। কয়েকজন আধিকারিকের জন্য সমস্ত দফতরকে এই কালিমা বহন করতে হচ্ছে। তবুও বলব তাঁরা আত্মবিশ্বাসী। পদের প্রভাব খাটিয়ে কোনও অফিসার নিজের গা বাঁচাতে পারবেন না। তাই পুঙ্খানুপুঙ্খ তদন্ত খুবই জরুরী, জানান দেশমুখ।

এখনও পর্যন্ত একটি কালো মার্সিডিজ ও সাদা ইনোভা-সহ মোট ৫টি গাড়ি বাজেয়াপ্ত করেছে এনআইএ। প্রতিটি গাড়িই পুলিশ কমিশনারেটের সঙ্গে জড়িত।

বিরোধী নেতা দেবেন্দ্র ফডণবিশ পুলিশকর্তাদের অপসারণের পেছনে রাজনৈতিক অভিসন্ধির অভিযোগ করেন। তাঁর এই বক্তব্যকে নস্যাত্ করেন অনীল দেশমুখ। তিনি বলেন, 'এটা একটা রাজনৈতিক উদ্দেশ্য নিয়ে করা মন্তব্য। পুলিশ সংক্রান্ত যে কোনও সিদ্ধান্ত সংশ্লিষ্ট দফতরের পাঁচ সদস্যের কমিটিই নেন। তাই সরকারি স্তরে নিয়োগ-অপসারণ নিয়ে প্রভাব থাকে না।'

বন্ধ করুন