বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > না থেমে পালানোর চেষ্টা করেছিল, তারপরই নাগল্যান্ডে গাড়িতে গুলি চালানো হয়: শাহ
কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।
কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

না থেমে পালানোর চেষ্টা করেছিল, তারপরই নাগল্যান্ডে গাড়িতে গুলি চালানো হয়: শাহ

  • নাগাল্যান্ডকাণ্ডের পরিপ্রেক্ষিতে লোকসভায় এমনই দাবি করলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

জঙ্গিদের গতিবিধির বিষয়ে তথ্য মিলেছিল। সেইমতো সন্দেহভাজন এলাকায় তৈরি ছিলেন ২১ প্যারা স্পেশাল ফোর্সের জওয়ানরা। একটি গাড়ি সেখানে আসে। সেটিকে থামতে বলা হয়। কিন্তু সেটি পালানোর চেষ্টা করে। গাড়িতে করে জঙ্গিরা যাচ্ছে সন্দেহে গুলি চালানো হয়। নাগাল্যান্ডকাণ্ডের পরিপ্রেক্ষিতে লোকসভায় এমনই দাবি করলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

সোমবার লোকসভায় শাহ জানান, গাড়িতে মোট আটজন ছিলেন। ছ'জনের মৃত্যু হয়। পরে বোঝা যায় যে পরিচয় নির্ধারণ ভুল হয়েছে। আহত দু'জনকে স্থানীয় স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়। সেই খবর পেয়ে সেনার ইউনিটকে ঘিরে ধরেন স্থানীয় বাসিন্দারা। দুটি গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেন। তার জেরে এক জওয়ানের মৃত্যু হয়। আহত হন বেশ কয়েকজন। 'আত্মরক্ষায় এবং ভিড় ছত্রভঙ্গ' করতে গুলি চালায় নিরাপত্তা বাহিনী। তার জেরে আরও সাত সাধারণ নাগরিকের মৃত্যু হয়। আহত হন কয়েকজন। স্থানীয় প্রশাসন এবং পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে।

রবিবার সংবাদসংস্থা পিটিআই জানায়, নাগাল্যান্ডের মনের ওটিঙে নিষিদ্ধ সংগঠন ন্যাশনাল সোশালিস্ট কাউন্সিল অফ নাগাল্যান্ডের (এনএসসিএন) একটি গোষ্ঠীর সদস্য ভেবে 'ভুলবশত' একটি পিক-আপ ভ্যান লক্ষ্য করে গুলি চালায় নিরাপত্তা বাহিনী। মৃত্যু হয় ছ'জনের। কিন্তু পিক-আপ ভ্যানে স্থানীয় বাসিন্দারা ছিলেন। যাঁরা কয়লা খাদান থেকে কাজ করে ফিরছিলেন। বাড়ি না ফেরায় তাঁদের খোঁজ শুরু করেন স্থানীয় যুবক এবং গ্রামবাসীরা। ঘিরে ফেলা হয় সেনার গাড়ি। উত্তপ্ত হয়ে ওঠে পরিস্থিতি। মৃত্যু হয় এক জওয়ানের। পুড়িয়ে দেওয়া হয় সেনার একাধিক গাড়ি। 'আত্মরক্ষায়' গুলি চালায় সেনা। তার জেরে আরও সাত নাগরিকের মৃত্যু হয়। অসম রাইফেলসের শিবিরের এলাকায় হামলা চালান একদল লোক। সেই সময় নিরাপত্তাবাহিনীর গুলিতে একজনের মৃত্যু হয়। আহত হন কমপক্ষে দু'জন।

সেই ঘটনার প্রেক্ষিতে সোমবার শাহ জানান, রবিবার সন্ধ্যায় প্রায় ২৫০ জন অসম রাইফেলসের কোম্পানি অপারেটিং বেসে ভাঙচুর চালান। সিওবি ভবনে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। জনতাকে ছত্রভঙ্গ করতে অসম রাইফেলস গুলি চালাতে বাধ্য হয়। তাতে আরও একজনের মৃত্যু হয়। বর্তমান পরিস্থিতির যাতে অবনতি না হয়, সেজন্য বাড়তি বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। ইতিমধ্যে সেনার তরফে সর্বোচ্চ পর্যায়ের তদন্ত শুরু করা হয়েছে। আইন মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। শাহ বলেন, 'এরকম অভিযানের সময় যাতে ভবিষ্যতে এরকম দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা না ঘটে, তা সব এজেন্সি নিশ্চিত করবে বলে ঠিক হয়েছে। কড়াভাবে বিষয়টির উপর নজর রেখেছে সরকার। এলাকায় শান্তি নিশ্চিত করতে উপযুক্ত পদক্ষেপ করা হচ্ছে।' সেইসঙ্গে তিনি বলেন,  'নাগাল্যান্ডের এই দুর্ভাগ্যজনক ঘটনায় ভারত সরকার গভীরভাবে অনুতপ্ত। মৃতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছে।'

যদিও শাহের ব্যাখ্যায় সন্তুষ্ট নন বিরোধীরা। তাঁদের দাবি, কেন মৃতদের পরিবারকে আর্থিক অনুদান দেওয়া হবে না? কেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী বিবৃতি দিচ্ছেন না বা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, তা নিয়েও সরব নন বিরোধীরা। তৃণমূল কংগ্রেস ছাড়া বিরোধী দলগুলি ওয়াক-আউট করে। যদিও শাহ জানিয়েছেন, রাজ্য সরকার তদন্ত করেছে। 

বন্ধ করুন