বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > মহালয়ার শুভেচ্ছা মোদীর, বাঙালির মন জয়ে দুর্গাপুজোই 'হাতিয়ার' বঙ্গ বিজেপির
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (ছবি সৌজন্যে পিটিআই) (PTI)
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (ছবি সৌজন্যে পিটিআই) (PTI)

মহালয়ার শুভেচ্ছা মোদীর, বাঙালির মন জয়ে দুর্গাপুজোই 'হাতিয়ার' বঙ্গ বিজেপির

  • প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এদিন এক টুইট বার্তায় লেখেন, ‘শুভ মহালয়া! বিশ্বের মঙ্গল এবং নাগরিকদের কল্যাণের জন্য মা দুর্গার আশীর্বাদ প্রার্থনা করছি।’

একুশের বিধানসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে ২০২০ সালে ইজেডসিসি-এ প্রথমবার দুর্গাপুজো করেছিল রাজ্য বিজেপি। তবে ভোটে হারের পর এবছর পুজো নিয়ে সেই অর্থে আগ্রহ নেই বঙ্গ বিজেপির অন্দরে। এহেন দোলাচলের মাঝেই এদিন মহালয়ার শুভেচ্ছা জানালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এদিন এক টুইট বার্তায় লেখেন, 'শুভ মহালয়া! আমরা মা দুর্গার কাছে প্রণাম করি এবং আমাদের এই বিশ্বের মঙ্গল এবং নাগরিকদের কল্যাণের জন্য তাঁর আশীর্বাদ প্রার্থনা করছি। আগামী দিনে সবাই যাতে সুখী হওয়ার পাশাপাশি সুস্থ থাকতে পারে।'

এদিকে দুর্গাপুজো আয়োজন নিয়ে সংশয় ছিল বঙ্গ বিজেপি অন্দরমহলে। এই আবহে জানা গিয়েছে, বঙ্গ বিজেপির তরফে এবারও দুর্গাপুজোর আয়োজন করা হবে। তবে তা আড়ম্বর বা জাঁকজমকপূর্ণ হবে না। বিজেপির গায়ে অবাঙালিদের দলের তকমা সেঁটে দিয়েছে তৃণমূল। তাদের অভিযোগ উত্তরপ্রদেশ, বিহার ও গুজরাতের সংস্কৃতি বাংলায় কায়েম করতে চায় বিজেপি। এই পরিস্থিতিতে দুর্গাপুজোর মাধ্যমে বাঙালির মন জয় করতে মরিয়া চেষ্টা চালিয়ে যাবে বঙ্গ বিজেপি।

গতবছর মহা আড়ম্বরে প্রথমবার ইজেডসিসি-এ দুর্গাপুজোর আয়োজন করেছিল রাজ্য বিজেপি। ষষ্ঠীর সন্ধ্যায় বাঙালি বেশে দিল্লি থেকে ভার্চুয়ালি পুজোর উদ্বোধন করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। পুজোর মূল উদ্যোক্তা ছিলেন মুকুল রায় ও কৈলাস বিজয়বর্গীয়। মুকুল ইতিমধ্যেই দল ছেড়েছেন। আর একুশের বিপর্যয়ের পর বাংলায় দেখা যায় না কৈলাসকে। ফলে এবার দুর্গাপুজো হবে কি না, তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছিল। পুজো না-করলে সাধারণ মানুষের মধ্যে ভুল বার্তা যেতে পারে। আমজনতার মনে হতে পারে, বিধানসভা ভোটে বিপর্যয়ের জন্যই এবার পুজো করছে না বিজেপি নেতৃত্ব। সব দিক চিন্তা করেই দুর্গাপুজো বন্ধের পথে হাঁটল না বিজেপির রাজ্য নেতৃত্ব।

 

বন্ধ করুন