লকডাউন কবলিত বিজয়ওয়াড়ায় পথচারীদের মাস্ক ব্যবহারের জন্য করজোড়ে অনুরোধ পুলিশের। ছবি: রয়টার্স। (REUTERS)
লকডাউন কবলিত বিজয়ওয়াড়ায় পথচারীদের মাস্ক ব্যবহারের জন্য করজোড়ে অনুরোধ পুলিশের। ছবি: রয়টার্স। (REUTERS)

প্রাণ হারালেন নিজামুদ্দিন ফেরৎ রোগীর চিকিৎসক, অন্ধ্রে করোনা আক্রান্ত মোট ৪৭৩

  • গত মার্চ মাসে নিজামুদ্দিনের সভা থেকে ফিরে আসা এক জামাত সদস্যের তিনি চিকিৎসা করেন।

করোনা সংক্রমণে মারা গেলেন নিজামুদ্দিনের তবলিঘি জামাত আয়োজিত ধর্মীয় সমাবেশে অংশগ্রহণকারীর চিকিৎসক। তাঁকে নিয়ে গত ১২ ঘণ্টায় অন্ধ্র প্রদেশে Covid-19 আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারালেন ২ জন। সংক্রমণে আক্রান্ত হলেন ৩৪ জন। এর জেরে রাজ্যে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৪৭৩ জন।

রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর প্রকাশিত মঙ্গলবারের বুলেটিনে জানা গিয়েছে, নেলোরের বাসিন্দা ৫৬ বছর বয়েসি ওই চিকিৎসককে তীব্র জ্বর ও বমির উপসর্গ দেখা দেওয়ার পরে গত ৩ এপ্রিল স্থানীয় সরকারি হাসপাতালে ভরতি করা হয়।

বুলেটিনে বলা হয়েছে, ‘তিনি আগে থেকেই ডায়াবিটিস ও হাইপারটেনশনে ভুগছিলেন। পরিবারের সদস্যদের অনুরোধে পরে তাঁকে চেন্নাইয়ের অ্যাপোলো হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। সোমবার তিনি মারা গিয়েছেন।’

নেলোর স্বাস্থ্য দফতরের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, পেশায় সার্জেন ওই চিকিৎসক কিছু দিন আগে নিজস্ব ক্লিনিক চালু করেন। সেখানেই গত মার্চ মাসে নিজামুদ্দিনের সভা থেকে ফিরে আসা এক জামাত সদস্যের তিনি চিকিৎসা করেন।

এ দিনই বিজয়ওয়াড়ার এক ৫৫ বছর বয়েসি বাসিন্দাও সংক্রমণের জেরে প্রাণ হারিয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। বুলেটিনে বলা হয়েছে, গত ৫ এপ্রিল বিজয়ওয়াড়া জেনারেল হাসপাতালে ভরতি থাকাকালীন তিনি পঞ্জাব ফেরৎ এক সংক্রামিত রোগীর সংস্পর্শে আসেন। এর পর তাঁকে ৯-১২ এপ্রিল ভেন্টিলেশনে রাখা হয়। তিনি আগে থেকেই ডায়াবিটিস ও অ্যাজমায় ভুগছিলেন। ১২ এপ্রিল তাঁর মৃত্যু হয়েছে।

গত ১২ ঘণ্টায় অন্ধ্র প্রদেশের যে ৩৯টি সংক্রমণের খবর পাওয়া গিয়েছে, তার মধ্যে ১৬ জন গুন্টুর, ৮ জন কৃষ্ণা, ৭ জন কার্নুল, ২ জন অনন্তপুর এবং একজন নেলোরের বাসিন্দা।

বন্ধ করুন