বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > সাধারণ ঘটনার মধ্যেই জাতিবিদ্বেষ খুঁজতে গিয়ে উল্টে চাপে 'নেট-বিপ্লবী'!
ফাইল ছবি : টুইটার  (Twitter)
ফাইল ছবি : টুইটার  (Twitter)

সাধারণ ঘটনার মধ্যেই জাতিবিদ্বেষ খুঁজতে গিয়ে উল্টে চাপে 'নেট-বিপ্লবী'!

'Woke' মানসিকতা দেখাতে গিয়ে গেরোয় পড়লেন এক নেটিজেন। সাধারণ পোস্টে জাতিবিদ্বেষ খুঁজতে গিয়ে পাল্টা গেরোয় তিনি।

সাধারণ একটা পোস্ট। আর তারই ভিন্ন মানে করে নেওয়া। তাই ঘিরে প্রতিবাদ, নেট-বিপ্লব। সোশ্যাল মিডিয়ায় এমনটা প্রায়শই হয়। এমনই 'Woke' মানসিকতা দেখাতে গিয়ে গেরোয় পড়লেন এক নেটিজেন। সাধারণ পোস্টে জাতিবিদ্বেষ খুঁজতে গিয়ে পাল্টা গেরোয় তিনি।

অঙ্কিত গুপ্তা নামের ওই টুইটার ব্যবহারকারী নীনা গুপ্তার একটি ভিডিয়ো টুইট করেন। এক ডেয়ারি সংস্থার বিজ্ঞাপনে নীনা গুপ্তাকে বলতে শোনা যায়, 'দোকান থেকে কেনা পনির কে কে ছুঁয়েছেন, কোথায় রাখা ছিল, গুণমান কেমন তা আমরা কিছুই জানতে পারি না।' তিনি জানান, বিজ্ঞাপনকারী ব্র্যান্ডের পনির একেবারে স্পর্শহীন। ফলে অত্যন্ত পরিচ্ছন্ন।

বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে এই বিজ্ঞাপন বেশ প্রাসঙ্গিক। সেই ভেবেই হয় তো বানানো। কিন্তু এর মধ্যেই জাতিবিদ্বেষ খুঁজে পান অঙ্কিত। টুইট করে তিনি লেখেন, 'কে কে ছুঁয়েছে বলতে নীনাজি কী বলতে চাইছেন?' অর্থাত্ এর মধ্যেই জাতিবিদ্বেষের গন্ধ খুঁজে পান অঙ্কিত। পরিচ্ছন্নতার নামে জাতিবিদ্বেষ ছড়ানোর অভিযোগ তোলেন তিনি।

টুইটের স্ক্রিনশট। সবার ট্রোলের মুঝে অ্যাকাউন্ট প্রাইভেট করে দেন অঙ্কিত। ছবি : টুইটার 
টুইটের স্ক্রিনশট। সবার ট্রোলের মুঝে অ্যাকাউন্ট প্রাইভেট করে দেন অঙ্কিত। ছবি : টুইটার  (Twitter)

অল্প সময়ের মধ্যেই ভাইরাল হয়ে যায় সেই টুইট। কিন্তু অঙ্কিত যা ভেবেছিলেন, তার উল্টোটাই হয়। সকলে এসে অঙ্কিতকেই ট্রোল করতে শুরু করেন। নীনা গুপ্তা বা ডেয়ারি সংস্থা যে করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখেই বিজ্ঞাপনটি বানিয়েছেন, সে কথা স্পষ্ট করে দেন সকলেই। অনেকে অঙ্কিতকে 'অতি-সচেতন', 'খুঁত খুঁজে বেরানো' অতি-আধুনিক বলেও ট্রোল করতে থাকেন। অবস্থা এমনই দাঁড়ায় যে নিজের টুইটার প্রোফাইল প্রাইভেট করে দেন অঙ্কিত।

বন্ধ করুন