বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > বাড়ছে করোনার সংক্রমণ, কমপক্ষে ৩ সপ্তাহ বাতিল হয়ে গেল ট্রেন
বাড়ছে করোনার সংক্রমণ, ৩ সপ্তাহ বাতিল হয়ে গেল ট্রেন। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
বাড়ছে করোনার সংক্রমণ, ৩ সপ্তাহ বাতিল হয়ে গেল ট্রেন। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

বাড়ছে করোনার সংক্রমণ, কমপক্ষে ৩ সপ্তাহ বাতিল হয়ে গেল ট্রেন

  • দেশে উর্ধ্বমুখী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ। 

দেশে উর্ধ্বমুখী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ। সেই পরিস্থিতিতে আজ (শুক্রবার) থেকে চলতি মাসের শেষপর্যন্ত লখনউ-নয়াদিল্লি-লখনউ তেজস এক্সপ্রেসের পরিষেবা স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নিল আইআরসিটিসি (ইন্ডিয়ান রেলওয়ে কেটারিং অ্যান্ড ট্যুরিজম কর্পোরেশন)।

আইআরসিটিসির তরফে জানানো হয়েছে, সাম্প্রতিক সময় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় ৯ এপ্রিল (শুক্রবার) থেকে লখনউ-নয়াদিল্লি-লখনউ তেজস এক্সপ্রেসের পরিষেবা স্থগিত রাখা হচ্ছে। প্রাথমিকভাবে এপ্রিলের শেষপর্যন্ত ট্রেনের পরিষেবা বন্ধ রাখা হয়েছে। আপাতত পরিস্থিতির উপর নজর রাখা হচ্ছে। তবে কবে ফের দৌড়াতে শুরু করবে ট্রেন, করোনা পরিস্থিতির পর্যালোচনা করেই সে বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

দ্বিতীয় দফায় ভারতে করোনার সংক্রমণের গ্রাফ উর্ধ্বমুখীI হওয়ার পর ইতিমধ্যে আমদাবাদ-মুম্বই তেজস এক্সপ্রেসের পরিষেবা স্থগিত করে দিয়েছে আইআরসিটিসি। গত ২ এপ্রিল থেকে সেই ট্রেন চলছে না। আইআরসিটিসির এক আধিকারিক জানিয়েছিলেন, যে দুই রাজ্যের মধ্যে যাচ্ছে তেজস এক্সপ্রেস, সেখানে রাত্রিকালীন কার্ফু (নাইট কার্ফু) ঘোষণা করা হয়েছে। সেই পরিস্থিতিতে যাত্রীদের দুর্ভোগ এড়াতেই সাময়িকভাবে পরিষেবা বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। 

এমনিতে করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে গত বছরের প্রথমদিক থেকে সব যাত্রীবাহী ট্রেনের মতো আমদাবাদ-মুম্বই তেজস এক্সপ্রেস পরিষেবা বন্ধ গিয়েছিল। তারপর অক্টোবরে ফের শুরু হয় পরিষেবা। কিন্তু যাত্রীর অভাবে আবার ২৪ নভেম্বরে পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছছিল। সেখান থেকে চলতি বছরের ১৪ ফেব্রুয়ারি থেকে সপ্তাহে চারদিন দৌড়াতে শুরু করে আমদাবাদ-মুম্বই তেজস এক্সপ্রেস। কিন্তু এবারও মাসদুয়েক দৌড়ানোর আগে বন্ধ করে দেওয়া হয় পরিষেবা।

বন্ধ করুন