রাষ্ট্রপতির প্রাণভিক্ষার আর্জি খারিজকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে এবার সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হল নির্ভয়াকাণ্ডে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আর এক আসামি বিনয় শর্মা।
রাষ্ট্রপতির প্রাণভিক্ষার আর্জি খারিজকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে এবার সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হল নির্ভয়াকাণ্ডে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আর এক আসামি বিনয় শর্মা।

নির্ভয়াকাণ্ডে প্রাণভিক্ষার আর্জি খারিজের সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ আর এক আসামির

পবন এখনও পর্যন্ত শেষ আইনি সাহায্য দণ্ড সংস্কারের আবেদন জাানায়নি। এ ছাড়া রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আর্জিও সে। সেই প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত স্থগিত রয়েছে ৪ আসামির ফাঁসি।

রাষ্ট্রপতির প্রাণভিক্ষার আর্জি খারিজকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে এবার সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হল নির্ভয়াকাণ্ডে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আর এক আসামি বিনয় শর্মা। মঙ্গলবার আসামির তরফে আদালতে আবেদন জনা দিয়েছেন তার আইনজীবী এ পি সিং। একই সঙ্গে বিনয়ের ফাঁসির আদেশ বদলে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে রূপান্তরের জন্যও আদালতে আর্জি জানিয়েছেন আইনজীবী।

গত ১ ফেব্রুয়ারি নির্ভয়াকাণ্ডে দোষী আসামি বিনয় শর্মার প্রাণভিক্ষার আর্জি খারিজ করে দেন রাষ্ট্রপতি রাম নাথ কোবিন্দ। তার আগে ৩১ জানুয়ারি এই মামলায় পরবর্তী নির্দেশ পাওয়া পর্যন্ত চার দণ্ডিত মুকেশ কুমার সিং, পবন গুপ্তা, বিনয় কুমার শর্মা ও অক্ষয় কুমার ঠাকুরের প্রাণদণ্ড স্থগিত রাখার নির্দেশ দেয় নিম্ন আদালত।

এদের মধ্যে পবন এখনও পর্যন্ত শেষ আইনি সাহায্য দণ্ড সংস্কারের আবেদন জাানায়নি। এ ছাড়া রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আর্জিও সে জানায়নি।

এ দিকে ফাঁসির তোড়জোড় বেশ কিছু দিন আগেই সেরে ফেলেছে তিহাড় জেল কর্তৃপক্ষ। একাধিক বার ফাঁসির ভুয়ো মহড়াও সম্পূর্ণ হয়েছে। দুই সপ্তাহের উপরে তিহাড় জেলে ঘাঁটি গেড়েছেন ফাঁসুড়ে পবন জল্লাদ। কিন্তু আইনি ফস্কা গেরোর সুযোগ নিয়ে আসন্ন মৃত্যুকে ক্রমাগত পিছু ঠেলে চলেছে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত চার আসামি।

২০১২ সালের ১৬ ডিসেম্বরের রাতে দিল্লিতে চলন্ত বাসে গণধর্ষণ করা হয় প্যারামেডিকস ছাত্রী নির্ভয়াকে। পাশবিক অত্যাচারের পরে তাঁর সঙ্গী ও তাঁকে বাস থোেকে ফেলে চম্পট দেয় চার দুষ্কৃতী। ঘটনার জেরে পনেরো দিন পরে সিঙ্গাপুরের হাসপাতালে নির্ভয়ার মৃত্যু হয়। এই ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে ছয় জনকে গ্রেফতার করা হয়।

অভিযুক্তদের মধ্যে এক নাবালক তিন বছর জুভেনাইল হোমে বন্দি থাকার পরে মুক্তি পায়। আর এক অভিযুক্ত রাম সিং তিহাড় জেলে আত্মঘাতী হয় বলে জানায় জেল কর্তৃপক্ষ। বাকি চার দোষীকে ফাঁসির আদেশ দেয় আদালত।

বন্ধ করুন