১ ফেব্রুয়ারি সকাল ৬টায় নির্ভয়া গণধর্ষণকাণ্ডে মৃত্যুদণ্ডাজ্ঞাপ্রাপ্ত ৪ আসামির ফাঁসি কার্যকর হওয়ার কথা ছিল।
১ ফেব্রুয়ারি সকাল ৬টায় নির্ভয়া গণধর্ষণকাণ্ডে মৃত্যুদণ্ডাজ্ঞাপ্রাপ্ত ৪ আসামির ফাঁসি কার্যকর হওয়ার কথা ছিল।

নির্ভয়াকাণ্ডে ৪ ফাঁসির আসামির আর্জি ১১ ফেব্রুয়ারি শুনবে সুপ্রিম কোর্ট

  • শীর্ষ আদালতের বেঞ্চ জানিয়ে দিয়েছে, নিজেদের প্রাণরক্ষার উদ্দেশে দণ্ডিতদের আইনের শেষ রাস্তা অবলম্বনের জন্য আরও সময় দেওয়া প্রয়োজন।

নির্ভয়াকাণ্ডে দণ্ডিত ৪ আসামির ফাঁসির আদেশ কার্যকর করা নিয়ে নিম্ন আদালতের বিরুদ্ধে কেন্দ্র ও দিল্লি সরকারের আনা গড়িমসির অভিযোগের শুনানি পিছিয়ে দিল সুপ্রিম কোর্ট।

শুক্রবার বিচারপতি আর ভানুমতীর নেতৃত্বাধীন শীর্ষ আদালতের বেঞ্চ জানিয়ে দিয়েছে, নিজেদের প্রাণরক্ষার উদ্দেশে দণ্ডিতদের আইনের শেষ রাস্তা অবলম্বনের জন্য আরও সময় দেওয়া প্রয়োজন।


আরও পড়ুন: নির্ভয়াকাণ্ড : দণ্ডিতদের আলাদাভাবে ফাঁসি হতে পারে, আদালতে জানাল তিহাড়


এই কারণে নির্ভয়াকাণ্ডে দণ্ডিতদের আর কোনও নোটিশ পাঠাতে রাজি হয়নি আদালত। মামলার পরবর্তী শুনানি ১১ ফেব্রুয়ারি ধার্য করেছে সুপ্রিম কোর্টের বেঞ্চ।

উল্লেখ্য, নির্ভয়ার ধর্ষকদের ফাঁসির আদেশ কার্যকর অনির্দিষ্টকালের জন্য পিছিয়ে দিয়েছে দিল্লির পাটিয়ালা হাউস কোর্ট। এই রায়কে দিল্লি হাইকোর্টে চ্যালেঞ্জ করেন নির্ভয়ার বাবা-মা। কেন্দ্রও দোষীদের আলাদা আলাদা করে ফাঁসির দাবির আর্জি জানিয়েছিল। যা খারিজ করে দেওয়া হয়।


আরও পড়ুন: 'বিচারের প্রতি পরিহাস', নির্ভয়া দণ্ডিতদের ফাঁসির স্থগিতাদেশের বিরোধিতা সরকারের


গত ১ ফেব্রুয়ারি সকাল ৬টায় নির্ভয়া গণধর্ষণকাণ্ডে মৃত্যুদণ্ডাজ্ঞাপ্রাপ্ত পবন গুপ্তা, বিনয় শর্মা, অক্ষয় কুমার সিং ও মুকেশ সিংয়ের ফাঁসি কার্যকর হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু আদালতের নির্দেশে শেষ মুহূর্তে ফাঁসি পিছিয়ে যায়। এরপর দোষীদের তরফে রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আবেদন জানানো হলেও তা খারিজ হয়ে যায়।

বন্ধ করুন