বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > খাবারের মাধ্যমে করোনা ছড়ানোর উপযুক্ত প্রমাণ মেলেনি, সংসদে জানাল কেন্দ্র
খাবারের মাধ্যমে করোনা ছড়ানোর উপযুক্ত প্রমাণ মেলেনি, সংসদে জানাল কেন্দ্র (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য এএনআই)
খাবারের মাধ্যমে করোনা ছড়ানোর উপযুক্ত প্রমাণ মেলেনি, সংসদে জানাল কেন্দ্র (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য এএনআই)

খাবারের মাধ্যমে করোনা ছড়ানোর উপযুক্ত প্রমাণ মেলেনি, সংসদে জানাল কেন্দ্র

  • করোনা আক্রান্ত দেশগুলি থেকে যে খাবার আমদানি করা হচ্ছে, তা খাওয়ার ক্ষেত্রে কোনও সমস্যা নেই।

আপাতত খাবারের মাধ্যমে করোনাভাইরাস সংক্রমণের কোনও উপযুক্ত প্রমাণ মেলেনি। ‘ফুড সেফটি অ্যান্ড স্ট্যান্ডার্ড অথরিটি অফ ইন্ডিয়া (এফএসএসএআই)’-এর গঠিত একটি কমিটির রিপোর্ট উল্লেখ করে বুধবার লোকসভায় একথা জানাল কেন্দ্র।

একইসঙ্গে কেন্দ্রের তরফে জানানো হয়, করোনা আক্রান্ত দেশগুলি থেকে যে খাবার আমদানি করা হচ্ছে, তা খাওয়ার ক্ষেত্রে কোনও সমস্যা নেই। তা মানুষের খাওয়ার পক্ষে সুরক্ষিত।

চিন ও অন্যান্য দেশে করোনার দাপট শুরুর পর সেইসব দেশগুলি থেকে আমদানিকৃত খাদ্য নিয়ে উদ্বেগ তৈরি হয়েছিল। খাবারের মধ্যে দিয়ে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ে না তো, দীর্ঘদিন ধরেই সেই আতঙ্কে ভুগছিলেন অনেকে। সেই পরিস্থিতিতে আমদানিকৃত খাবারে করোনার উপস্থিতির সম্ভাবনা খতিয়ে দেখতে একটি বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠন করেছিল এফএসএসএআই।

তারপর বুধবার সংসদের নিম্নকক্ষে লিখিত আকারে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের রাষ্ট্রমন্ত্রী অশ্বিনী চৌবে বলেন, ‘নিজের রিপোর্টে কমিটি জানিয়েছে, আপাতত করোনাভাইরাসের খাদ্যবাহিত সংক্রমণের কোনও চূড়ান্ত প্রমাণ পাওয়া যায়নি এবং (কমিটি) এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছে যে করোনাভাইরাস প্রভাবিত দেশ থেকে ভারতে আমদানিকৃত খাদ্যও মানুষের ভোজনের জন্য সুরক্ষিত।’

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু), ‘ফুড অ্যান্ড এগ্রিকালচারাল অর্গানাইজেশন’-এর মতো সংস্থার সঙ্গে সহমত পোষণ করে কমিটি জানিয়েছে, মানুষ থেকে মানুষ দেহেই মূলত করোনাভাইরাসের সংক্রমণ হয় বলে ধারণা।

বিষয়টি নিয়ে আমজনতার মন থেকে শঙ্কা দূর করতে ইতিমধ্যে উদ্যোগী হয়েছে এফএসএসএআই। কমিটির ফলাফলের উপর ভিত্তি করে গত ৫ মার্চ একটি বিবৃতি জারি করা হয়েছিল। পরদিন সব রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের খাদ্য সুরক্ষা কমিশনারদের পাঠানো চিঠিতে গ্রাহকদের কাছে সঠিক তথ্য পৌঁছে দেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল। একইসঙ্গে যে কোনও ধরণের ভুল তথ্য চিহ্নিত করে সঠিক তথ্য প্রচারেরও নির্দেশ দিয়েছিল এফএসএসএআই।

বন্ধ করুন