শুক্রবার দিল্লিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে দেখা করলেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে ও তাঁর ছেলে তথা রাজ্য মন্ত্রিসভার সদস্য আদিত্য ঠাকরে।ছবি সৌজন্যে পিটিআই।
শুক্রবার দিল্লিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে দেখা করলেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে ও তাঁর ছেলে তথা রাজ্য মন্ত্রিসভার সদস্য আদিত্য ঠাকরে।ছবি সৌজন্যে পিটিআই।

সিএএ-এনপিআর নিয়ে আতঙ্ক ভিত্তিহীন, নমোর সঙ্গে বৈঠক সেরে ঘোষণা উদ্ধবের

  • যাঁরা এই নিয়ে উসকানি দিচ্ছেন, তাঁদের আগে সিএএ কী, তা বোঝা দরকার। কী কারণে আমরা তার প্রতিবাদ জানাব অথবা কেন তা সমর্থন করব। প্রথমে বিষয়টি বুঝতে হবে।

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) এবং জাতীয় জনসংখ্যা পঞ্জি (এনপিআর) নিয়ে মানুষকে ভুল বুঝিয়ে ক্ষেপিয়ে তুলছেন একশ্রেণির রাজনৈতিক নেতা। শুক্রবার এই অভিযোগ জানালেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে। সেই সঙ্গে তিনি বলেন, কেন্দ্রীয় সরকারের দ্বারা চালু এই দুই প্রক্রিয়া নিয়ে আতঙ্কের কারণ নেই।

দুই দিনের দিল্লি সফরে এসে শুক্রবার উদ্ধব বলেন, ‘যাঁরা এই নিয়ে উসকানি দিচ্ছেন, তাঁদের আগে সিএএ কী, তা বোঝা দরকার। কী কারণে আমরা তার প্রতিবাদ জানাব অথবা কেন তা সমর্থন করব। প্রথমে বিষয়টি বুঝতে হবে।’

বিধানসভা নির্বাচনে জিতে মুক্যমন্ত্রী হওয়ার পরে প্রথম দিল্লি সফর এ দিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে সাক্ষাত দিয়ে শুরু করেন উদ্ধব। এরপর সাংবাদিক বৈঠকে এসে তিনি জানান, মোদীর সঙ্গে সাক্ষাত্কার ফলপ্রসূ হয়েছে। মহারাষ্ট্রের উন্নতি সম্পর্কে তাঁদের কথা হয়েচে বলে জানান ঠাকরে। এরপরেই প্রশ্নোত্তরের মোড় সিএএ, এনআরসি ও এনপিআর-এর দিকে ঘুরে যায়।

এর আগেও সিএএ এবং এনপিআর-এর সমর্থনে মুখ খুলেছেন উদ্ধব ঠাকরে। তাঁর দাবি, এই দুই প্রক্রিয়া নিয়ে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত গুজব ছড়ানো হচ্ছে। এনপিআর নিয়ে আগে কিছুটা দ্বিধাগ্রস্ত থাকলেও বর্তমানে তাই নিয়ে কোনও আপত্তি প্রকাশ করেননি তিনি।

এদিেন সাংবাদিক বৈঠকে উদ্ধব সাফ জানিয়েছেন, ‘এনপিআর নিয়েও অহেতুক ভয় ছড়ানো হচ্ছে। কেউ কাউকে বাইরে ফেলে দিচ্ছে না। প্রতি ১০ বছর অন্তর যে জনসংখ্যা গণনা প্রক্রিয়া চলে, এর সঙ্গে তার সম্পর্ক রয়েছে। কিন্তু প্রক্রিয়া চালু হওয়ার পরে তার জেরে বিপদ হতে পারে এমন চিন্তা মাথায় ঢুকলে শুধু বিতর্কই বাধবে।’

সনিয়া গান্ধীর সঙ্গে বৈঠকের কিছু আগে সিএএ ও এনপিআর সম্পর্কে এ ভাবেই নিজের অবস্থান জোটসঙ্গীদের কাছে স্পষ্ট করলেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী। এই ব্যাপারে প্রাক্তন জোটসঙ্গী বিজেপির পাশেই যে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, তা জানিয়ে দিতে দ্বিধা করলেন না শিব সেনা নেতা।

বন্ধ করুন