বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > এত দেহ ভেসে এসেছে যে এবার গঙ্গার জলেও করোনা? কী বলছে রিপোর্ট?
সাধারণ মানুষের মধ্যে যে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছিল, তা দূর করবে এই সমীক্ষার রিপোর্ট। ফাইল ছবি : এএনআই (ANI)
সাধারণ মানুষের মধ্যে যে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছিল, তা দূর করবে এই সমীক্ষার রিপোর্ট। ফাইল ছবি : এএনআই (ANI)

এত দেহ ভেসে এসেছে যে এবার গঙ্গার জলেও করোনা? কী বলছে রিপোর্ট?

  • গঙ্গা যে যে স্থান দিয়ে গিয়েছে, প্রায় প্রতিটি স্থানেই দুই পাড়ের বহু মানুষ ধর্মীয়, স্নান, জীবিকা এমনকি পানের জন্য এই জলের উপর নির্ভরশীল।

উত্তরপ্রদেশে ও বিহারে গঙ্গার জলে ভেসে এসেছে একাধিক দেহ। সংবাদমাধ্যম ও সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়েছে সেই খবর। আর তারপর থেকেই গঙ্গার জলে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা শুরু হয়। তবে, না। গঙ্গার জলে করোনাভাইরাস নেই। গঙ্গার জলের একাধিক নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট তাই বলছে।

কারা পরীক্ষা করেছে?

বুধবার এই রিপোর্ট প্রকাশ করে ন্যাশানাল মিশন ফর ক্লিন গঙ্গা। এটি জলশক্তি মন্ত্রকের অধিনস্ত। এই যাচাই পর্বে হাত মিলিয়েছিল কাউন্সিল ফর সায়েন্টিফিক অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিয়াল রিসার্চও। এছাড়া কেন্দ্রীয় ও রাজ্যের দূষণ নিয়ন্ত্রক পর্ষদও এই পর্যবেক্ষণে সহায়তা করে।

কোথায় কোথায় গঙ্গাজলের নমুনা সংগ্রহ করা হয়?

দুটি ফেজে পর্যবেক্ষণ চালানো হয়েছে। উন্নাও, কানপুর, হামিরপুর, এলাহাবাদ, বারাণসী, বালিয়া, গাজিপুর, পাটনা এবং ছাপরা থেকে একাধিক নমুনা সংগ্রহ করা হয়।

এর মধ্যে কোনওটিতেই SARS-CoV2-এর কোনও হদিশ মেলেনি।

কীভাবে পরীক্ষা করা হয়?

গঙ্গার জলে ভাইরাসের RNA এক্সট্র্যাক্ট করার পর একটি RT-PCR টেস্ট করা হয়, যাতে জলে ভাইরাল লোডটা জানা যায়।

এছাড়া একই পর্যবেক্ষণে নদী বায়োলজিকাল চরিত্র যাচাই করা হয়।

কেন এটি গুরুত্বপূর্ণ?

গঙ্গা যে যে স্থান দিয়ে গিয়েছে, প্রায় প্রতিটি স্থানেই দুই পাড়ের বহু মানুষ ধর্মীয়, স্নান, জীবিকা এমনকি পানের জন্য এই জলের উপর নির্ভরশীল। তাই সাধারণ মানুষের মধ্যে যে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছিল, তা দূর করবে এই সমীক্ষার রিপোর্ট।

বন্ধ করুন