বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > ২০২৪ লোকসভা ভোটের আগে থাকতেই দুর্নীতি ইস্যুতে চড়ছে পারদ! মোদীর মন্তব্যে পাল্টা তোপ নীতীশের
(PTI Photo) (PTI)

২০২৪ লোকসভা ভোটের আগে থাকতেই দুর্নীতি ইস্যুতে চড়ছে পারদ! মোদীর মন্তব্যে পাল্টা তোপ নীতীশের

  • ন্তব্যে নীতীশ বলেন, ‘গত কয়েক বছর ধরে কাজ করছি। আমি বেশি আমল দিইনা কেন্দ্র কী বলছে তা নিয়ে। কেউ দুর্নীতিগ্রস্তদের আড়াল করছে না। অন্যরাজ্যে কী হচ্ছে তা নিয়ে ওঁরা ভাবুন।’ উল্লেখ্য, এর আগে বামরাজ্য কেরলের কোচিতে পা রেখে বিরোধীদের দিকে নিশানা তাক করেন মোদী। বলেন, ‘ দুর্নীতিগ্রস্তদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু হতেই একটি মেরুকরণ দিক তৈরি হয়েছে। আমরা দুর্নীতিগ্রস্তদের নিয়ে পদক্ষেপ নিতেই, জাতীয় রাজনীতিতে একটি নতুন মেরুকরণ দিক তৈরি হয়েছে।’

২০২৪ লোকসভা ভোটের রণদুন্দুভি কার্যত বেজে গিয়েছে। ধীরে ধীরে সমস্ত পার্টি পিচের প্রস্তুতিতে ব্যস্ত। শাসক শিবিরকে টেক্কা দিতে তৈরি হচ্ছে বিরোধীরা।বিরোধী জোটের প্রধানমন্ত্রী মুখ হিসাবে কে উঠে আসবেন,তা লাখ টাকার প্রশ্ন। এদিকে, বিহারে নীতীশ কুমারের জেডিইউ, বিজেপির হাত ছেড়ে বিরোধী শিবিরে। বিরোধী ঐক্য নিয়ে কটাক্ষ করে নরেন্দ্র মোদী বলেন, দুর্নীতিগ্রস্তদের আড়াল করতে বিরোধীরা এক হচ্ছে। আর শুক্রবার মোদীর সেই মন্তব্যের জবাব দিয়েছেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার।

বিহারে রেলের দুর্নীতি কাণ্ডে নীতীশের সঙ্গে আরজেডির তেজস্বী ইতিমধ্যেই কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার নজরে রয়েছেন অভিযোগের সূত্র ধরে। এদিকে, নীতীশ মোদীর মন্তব্যের জবাবে বলেছেন,  তাঁর সরকার কোনও দিনওই দুর্নীতিগ্রস্তদের আড়াল করেনি। এক মন্তব্যে নীতীশ বলেন, ‘গত কয়েক বছর ধরে কাজ করছি। আমি বেশি আমল দিইনা কেন্দ্র কী বলছে তা নিয়ে। কেউ দুর্নীতিগ্রস্তদের আড়াল করছে না। অন্যরাজ্যে কী হচ্ছে তা নিয়ে ওঁরা ভাবুন।’ উল্লেখ্য, এর আগে বামরাজ্য কেরলের কোচিতে পা রেখে বিরোধীদের দিকে নিশানা তাক করেন মোদী। বলেন, ‘ দুর্নীতিগ্রস্তদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু হতেই একটি মেরুকরণ দিক তৈরি হয়েছে। আমরা দুর্নীতিগ্রস্তদের নিয়ে পদক্ষেপ নিতেই, জাতীয় রাজনীতিতে একটি নতুন মেরুকরণ দিক তৈরি হয়েছে।’ টাকার অভাব থাকবে না যদি আলমারির লকারে রাখেন এগুলি! কিছু সহজ বাস্তুটিপস

এদিকে মোদীকে কার্যত চাচাছোলা ভাষায় জবাব দিয়ে বিহারের জেডিইউ নেতা তথা মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার বলছেন, ‘আমি নজর দিইনা কে কী বলছে তাই নিয়ে। যখন প্রয়াত অটলবিহারী বাজপেয়ী প্রধানমন্ত্রী ছিলেন তখন তাঁর সঙ্গে কাজ করার সুযোগ হয়েছিল আমার। আমরা ভালো কাজ করেছিলাম। আমরা সকলের খেয়াল রেখেছিলাম। যখন বিহারের মানুষ আমাকে কাজের সুযোগ দিয়েছেন, তখন থেকে এখানের জন্য কাজ করেছি আমি। কেন্দ্রে কী বলা হচ্ছে আমি খেয়াল করি না। ’ উল্লেখ্য, বিহারে আরজেডির সঙ্গে নীতীশের জেডিইউ হাত মেলাতেই বিপক্ষে গিয়ে বিজেপি সোচ্চার হয় দুর্নীতি ইস্যুতে। ফলে আরজেডির কার্তিকেয় কুমার মন্ত্রী হওয়ার পরই তাঁকে ইস্তফা দিতে হয় এই দুর্নীতি ইস্যুতে।

 

 

 

 

 

 

 

বন্ধ করুন