বাড়ি > ঘরে বাইরে > শুধু লাদাখ নয়, উত্তর থেকে পূর্ব, সিকিম সহ পুরো সীমান্ত জুড়েই সেনা বাড়িয়েছে চিন
মোদী- শি জিনপিং 
মোদী- শি জিনপিং 

শুধু লাদাখ নয়, উত্তর থেকে পূর্ব, সিকিম সহ পুরো সীমান্ত জুড়েই সেনা বাড়িয়েছে চিন

সরকারি সূত্রে এই তথ্য পাওয়া গিয়েছে। 

Rezaul H Laskar and Rahul Singh

 

কূটনৈতিক ও সামরিক স্তরে দ্রুত সমস্যা সমাধানের জন্য আলোচনা চালাচ্ছে ভারত ও চিনা, বৃহস্পিতবার ফের এই কথা বললেন ভারতের বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র। কিন্তু সূত্রের খবর, শুধু লাদাখ নয়, পুরো সীমান্তেই সেনা বাড়িয়েছে চিন। সেটা অরুণাচল প্রদেশ হোক বা সিকিম। 

এই সপ্তাহের শুরুতে ভারতীয় অধিকর্তাদের থেকে জানা গিয়েছিল যে পূর্ব লাদাখের তিন জায়গায় সীমান্ত বরাবর সেনা সরিয়েছে দুই দেশ। কিন্তু জানা যাচ্ছে গত মাসে পূর্ব লাদাখ ও উত্তর সিকিমে ভারতীয় ও চিনা সৈন্যদের মধ্যে যে সংঘর্ষ হয়েছিল, তারপরে অনেক জায়গাতেই লাইন অফ অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোলের (এলএসি) দুই তরফেই সৈন্যের সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে। লাদাখ, উত্তরাখণ্ড, সিকিম ও অরুণাচল প্রদেশে বিস্তৃত ভারত-চিন সীমান্ত। 

এদিন বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র অনুরাগ শ্রীবাস্তব বলেন যে দুই দেশের মধ্যে আলোচনা চলছে বিষয়টির জলদি সমাধানের জন্য। এই প্রসঙ্গে তিনি গত শনিবার হওয়া কোর কম্যান্ডারদের বৈঠকের কথাও বলেন যেটি মলডোতে হয়েছিল। দুই দেশ চেষ্টা করছে যাতে সীমান্তে শান্তি বজায় থাকে যেটি ভারত-চিনের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক বৃদ্ধির জন্য গুরুত্বপূর্ণ বলে জানান শ্রীবাস্তব। এছাড়াও যদিও কিছু বলেননি তিনি। 

তবে এক বরিষ্ঠ অফিসার জানিয়েছেন যে লাদাখ ও সিকিমে দুই দেশের সৈনিকদের মধ্যে হাতাহাতি হওয়ার পর থেকেই সীমান্তে সেনা বাড়াতে শুরু করেছে বেজিং। তিনি জানান যে উত্তর থেকে পূর্ব, সীমান্তবর্তী সব জায়গাতেই সেনা বাড়িয়েছে চিন। নিজেদের ডেপথ এরিয়ায় এভাবেই শ্রক্তি বাড়াচ্ছে তারা। 

দ্বিতীয় বরিষ্ঠ কর্তা জানিয়েছেন যে ভারতও বাহিনী ও প্রয়োজনী অস্ত্রশস্ত্র সীমান্তে পাঠিয়ে দিয়েছে চিনের সঙ্গে পাল্লা দেওয়ার জন্য। 

অবসরপ্রাপ্ত নর্থান আর্মি কম্যান্ডার বিএস জয়সওয়াল বলেন যে এই মরশুমে সব মিলিটারি কসরত হয়। চিন হয়তো বাহিনী রিজার্ভে রাখছে যাতে কোনও রকম ভাবে পরিস্থতি যদি আরও ঘোরালো হয় তার জন্য। একই সঙ্গে স্থানীয় পরিস্থিতির সঙ্গে সড়গড় হওয়ার জন্যেও এরকম করা হয়। জয়সওয়াল জানান যে ভারতও পর্যাপ্ত পরিমাণে সেনা নিশ্চই ফরওয়ার্ড বেসে রেখেছে  যাতে চিনের কোনও আক্রমণাত্মক পন্থাকে মোকাবিলা করা যায়। ওই অঞ্চলে চিন কোনও রকম কিছু করতে গেলে নানান ভৌগলিক বাধার সম্মুখীন হবে বলেও মনে করেন প্রাক্তন এই সেনাকর্তা। 

অন্যান্য সেক্টরে ঠিক কত সেনা রেখেছে চিন এটা এখনও জানা যায়নি। তবে লাদাখ সীমান্তে প্রায় ৮০০০ সেনা, ট্যাঙ্ক, আর্টিলারি গান, ফাইটার বোম্বার, রকেট ফোর্স ও এয়ার ডিফেন্স রাডার নিয়ে প্রস্তুত চিন। 

বন্ধ করুন