বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > তৃণমূল কংগ্রেসের ‘‌খেলা হবে’‌ এবার কাঁপাচ্ছে যোগীর রাজ্যেও
সেই পোস্টার। (ছবি সৌজন্য টুইটার)
সেই পোস্টার। (ছবি সৌজন্য টুইটার)

তৃণমূল কংগ্রেসের ‘‌খেলা হবে’‌ এবার কাঁপাচ্ছে যোগীর রাজ্যেও

কানপুরে সমাজবাদী পার্টির যে হোর্ডিং রয়েছে, তাতে সমাজবাদী পার্টির চিহ্ন ছাড়াও আরও দুজন স্থানীয় নেতার নাম দেখা দিয়েছে।

‘‌খেলা হবে’‌ স্লোগান এবার বাংলার গণ্ডি ছাড়িয়ে পাড়ি দিল উত্তরপ্রদেশে। যোগী আদিত্যনাথ সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করতে এবার এই স্লোগানকেই হাতিয়ার করতে চাইছে সমাজবাদী পার্টি। সম্প্রতি গোটা কানপুরে সমাজবাদী পার্টির হোর্ডিংয়ে ছেয়ে গিয়েছে। আর তাতে লেখা রয়েছে, ‘‌অব ইউপি মে খেলা হোই।' যার অর্থ এবার উত্তরপ্রদেশে খেলা হবে।

২০২২ সালে উত্তরপ্রদেশে বিধানসভা ভোট। গোটা কানপুর শহর যেভাবে সমাজবাদী পার্টির এই হোর্ডিংয়ে ছেয়ে গিয়েছে, তাতে একটা কথা স্পষ্ট, এবারের নির্বাচনে বিজেপিকে সরাতে কোমর বেঁধে নামছে সমাজবাদী পার্টি। আর তাতে অখিলেশ যাদবের হাতিয়ার সেই বাংলার মাটি থেকে উঠে আসা খেলা হবে স্লোগানই। কানপুরে সমাজবাদী পার্টির যে হোর্ডিং রয়েছে, তাতে সমাজবাদী পার্টির চিহ্ন ছাড়াও আরও দুজন স্থানীয় নেতার নাম দেখা দিয়েছে। কানপুরের সমাজবাদী পার্টির সভাপতি জানান, ‘‌কানপুরে জুড়ে আমরা এই হোর্ডিং সরিয়ে দিয়েছি। কেননা খেলা তো এবার সত্যি উত্তরপ্রদেশে। যেভাবে বাংলায় অশালীন ভাষা ব্যবহার করার প্রত্যাশিত ফল পেয়েছে বিজেপি, ২০২২ সালে উত্তরপ্রদেশেই একই ফলাফল হবে তাঁদের।’‌|

এদিন যোগী সরকারকে কাঠগড়ায় তুলে সমাজবাদী পার্টির প্রধান অখিলেশ যাদব বলেন, ‘‌রাজনীতি করতে গিয়ে রাজ্যকে চরম বেকারত্বের মধ্যে এনে ফেলেছেন যোগী। মুখ্যমন্ত্রী লাখ-লাখ চাকরি দেবেন বলে যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, তা সত্যিই হয়নি। রাজ্যের অর্থনীতির অবনতির জন্য দায়ী বিজেপি।’‌ সূত্রের খবর, এবারে সমাজবাদী পার্টি একাই উত্তর প্রদেশে নির্বাচনের লড়াইতে নামছে। সেক্ষেত্রে একা লড়াইয়ের ময়দানে নেমে বিজেপিকে উত্তরপ্রদেশে হারানো সম্ভবপর হয় কিনা, এখন সেটাই দেখার।

উল্লেখ্য, গত বিধানসভা ভোটে রাজ্য তৃণমূল কংগ্রেসের মুখপাত্র দেবাংশু ভট্টাচার্যের এই খেলা হবে স্লোগান খুবই জনপ্রিয় হয়েছিল। এই স্লোগান নির্বাচনের ময়দানে তৃণমূলকে যে বাড়তি সুবিধা দিয়েছিল, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর বিভিন্ন জনসভায় এই স্লোগান ব্যবহার করে সারা রাজ্যের মানুষের মন জয় করে নিতে সামর্থ্য হয়েছিলেন। সেই সময় উত্তরপ্রদেশ থেকে মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ পশ্চিমবঙ্গে প্রচার চালিয়েও কিছু লাভ করতে পারেননি। এখন দেখার, যোগীর নিজের রাজ্যে এই স্লোগানকে কীভাবে কাজে লাগায় সমাজবাদী পার্টি।

বন্ধ করুন