বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > পেট্রল-ডিজেলের দাম বৃদ্ধির দায় করোনা টিকা, বিনামূল্যে রেশনের মতো সামাজিক প্রকল্পের উপর চাপাল কেন্দ্র
মুম্বইয়ে পেট্রলের সেঞ্চুরি, ফুটে উঠেছে ইলেকট্রিক ডিসপ্লে বোর্ডে। (ছবি সৌজন্য বিজয় বাটে/হিন্দুস্তান টাইমস)
মুম্বইয়ে পেট্রলের সেঞ্চুরি, ফুটে উঠেছে ইলেকট্রিক ডিসপ্লে বোর্ডে। (ছবি সৌজন্য বিজয় বাটে/হিন্দুস্তান টাইমস)

পেট্রল-ডিজেলের দাম বৃদ্ধির দায় করোনা টিকা, বিনামূল্যে রেশনের মতো সামাজিক প্রকল্পের উপর চাপাল কেন্দ্র

  • অবশেষে কেন্দ্রীয় পেট্রোলিয়াম মন্ত্রী স্বীকার করলেন, জ্বালানি তেলের দাম বাড়ছে।

অবশেষে স্বীকার করলেন, জ্বালানি তেলের দাম বাড়ছে। তবে পেট্রল এবং ডিজেলের লাগামছাড়া দাম বৃদ্ধির দায় করোনাভাইরাস টিকা, রেশনের উপর দায় চাপিয়ে দিলেন কেন্দ্রীয় পেট্রোলিয়াম মন্ত্রী ধর্মেন্দ্র প্রধান। 

রবিবার নয়াদিল্লির মহারাজা আগ্রাসেন হাসপাতালে ইন্দ্রপ্রস্থ গ্যাস লিমিটেডের তৈরি করা অক্সিজেন প্ল্যান্টের উদ্বোধনে গিয়ে ধর্মেন্দ্র বলেন, ‘আমি স্বীকার করছি, আজ যে দাম পড়ছে, তার জেরে আমজনতা সমস্যায় পড়ছেন। সেটা নিয়ে কোনও সন্দেহ নেই। কিন্তু ভারত সরকার হোক বা রাজ্য সরকার - এক বছরে করোনাভাইরাস টিকার জন্য ৩৫,০০০ কোটি টাকা খরচ হচ্ছে। বিনামূল্যে রেশন দেওয়ার জন্য এক লাখ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রধানমন্ত্রী গরিব কল্যাণ যোজনা চালু করেছেন প্রধানমন্ত্রী। পিএম কিষান যোজনায় হাজার-হাজার কোটি টাকা সরাসরি দেশের কৃষকদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে পাঠানো হচ্ছে। কৃষকদের কল্যাণের জন্য ধান এবং গমের ন্যূনতম সহায়ক মূল্য ঘোষণা করা হয়েছে। এই সময় দেশে কর্মসংস্থান তৈরি এবং উন্নয়নমূলক কাজের জন্য বিনিয়োগের প্রয়োজন আছে। এই কঠিন সময় পয়সা বাঁচিয়ে মানুষের কল্যাণে ব্যবহার করছি।’

চলতি বছর পাঁচ রাজ্যে বিধানসভা ভোটের পর থেকেই দেশে লাগাতার বাড়তে শুরু করেছে জ্বালানি তেলের দাম। মুম্বইয়ে সেঞ্চুরি করে ফেলেছে এক লিটার পেট্রল। ভারত-পাকিস্তান সীমান্তের কাছে অবস্থিত রাজস্থানের শ্রী গঙ্গাধর জেলায় লিটারপিছু ডিজেল ১০০ টাকার গণ্ডি ছাড়িয়ে গিয়েছে। সেখানে এক লিটার পেট্রল বিকোচ্ছে ১০৭.২২ টাকায়। দিল্লিতে রেকর্ড করে ফেলেছে পেট্রল। অথচ দামে কোনওভাবে লাগাম পড়ছে না। তা নিয়ে কংগ্রেস-সহ বিরোধী দলগুলি নরেন্দ্র মোদী সরকারের বিরুদ্ধে আক্রমণ শানাচ্ছে। বিশেষত গত বছর আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত তেলের দাম হুড়মুড়িয়ে পড়ে গেলেও দেশবাসী স্বস্তি পাননি। বরং কর বাড়িয়ে দিয়েছিল মোদী সরকার।

যদিও কেন্দ্রীয় পেট্রোলিয়াম মন্ত্রীর বক্তব্য, কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধীর যখন এতই চিন্তা, তখন কেন মহারাষ্ট্রে, পঞ্জাব, রাজস্থানের মতো কংগ্রেস-শাসিত রাজ্যগুলিকে জ্বালানি তেলের দাম কম করতে বলছেন না। মহারাষ্ট্রে তো সবথেকে বেশি কর চাপানো হয়। যদিও মধ্যপ্রদেশ, কর্নাটকেত মতো বিজেপি-শাসিত রাজ্যে কর কমানো হবে কিনা, সে বিষয়ে মুখে কুলুপ এঁটেছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী।

বন্ধ করুন