বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > Russia-Ukraine Crisis: ইউক্রেনে যুদ্ধ এড়াতে শেষ চেষ্টা,ম্যাক্রোঁর প্রস্তাবে ‘সহমত পোষণ’ বাইডেন-পুতিনের
ভ্লাদিমির পুতিন ও জো বাইডেন (ফাইল ছবি: রয়টার্স) (REUTERS)

Russia-Ukraine Crisis: ইউক্রেনে যুদ্ধ এড়াতে শেষ চেষ্টা,ম্যাক্রোঁর প্রস্তাবে ‘সহমত পোষণ’ বাইডেন-পুতিনের

  • ওয়াশিংটনের কর্তারা মনে করছেন যে যুদ্ধ অবশ্যম্ভাবী। তবে ফরাসি প্রেসিডেন্ট বাইডেন ও পুতিনের সঙ্গে কথা বলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করা চেষ্টা করছেন।

যুদ্ধের কালো মেঘে ছেয়ে গিয়েছে ইউক্রেনসহ গোটা ইউরোপের আকাশ। মহাসাগরের ওপার থেকে আমেরিকা বারংবার উদ্বেগ প্রকাশ করে চলেছে। এরই মাঝে শান্তি স্থাপনের লক্ষ্যে চেষ্টা করে চলেছেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ। এই আবহে ফরাসি প্রেসিডেন্টের প্রস্তাব মেনে ‘নীতিগতভাবে’ ইউক্রেন নিয়ে সম্মেলনের পক্ষে সহমত পোষণ করলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। যদিও ওয়াশিংটনের কর্তারা এখনও মনে করছেন যে যুদ্ধ অবশ্যম্ভাবী।

হোয়াইট হাউজের প্রেস সেক্রেটারি জেন সাকি বলেছেন, ‘আমরা সবসময় কূটনীতির জন্য প্রস্তুত। রাশিয়ার যুদ্ধ বেছে নিলে আমরা দ্রুত এবং গুরুতর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে প্রস্তুত। বর্তমানে রাশিয়া খুব শীঘ্রই ইউক্রেনের উপর পূর্ণ মাত্রায় হামলার প্রস্তুতি চালিয়ে যাচ্ছে বলে মনে হচ্ছে।’

এদিকে ফরাসি প্রেসিডেন্টের অফিসের তরফে দাবি করা হয় যে বাইডেন ও পুতিন ‘ইউরোপে শান্তি ও নিরাপত্তা বজায় রাখার’ লক্ষ্যে একটি সম্মেলনের বিষয়ে সহমত পোষণ করেছেন। ফরাসি প্রেসিডেন্টের অফিসের তরফে জানান হয়েছে, বাইডেন ও পুতিন নীতিগতভাবে এমন এক সম্মেলনের পক্ষেই মত দিয়েছেন। তবে রাশিয়া যদি ইউক্রেনে হামলা চালায় তাহলে এমন কোনও সম্মেলনের সম্ভাবনা থাকবে না।

উল্লেখ্য, কয়েকদিন আগেই মস্কোতে গিয়ে ক্রেমলিনে বসে পুতিনের সঙ্গে দীর্ঘ পাঁচ ঘণ্টা বৈঠক করেছিলেন ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ। এরপর তিনি ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির সঙ্গেও বৈঠক করেন। তবে এরপরও যুদ্ধের মেঘ দূর হয়নি। বরং যত দিন যাচ্ছে, ততই প্রবল হচ্ছে যুদ্ধের সম্ভাবনা। এই পরিস্থিতিতে বাইডেন ও পুতিন উভয়ের সঙ্গেই ফোনে কথা বললেন ম্যাক্রোঁ।

উল্লেখ্য, রবিবার বেলারুশ ঘোষণা করে যে রাশিয়া তাদের দেশে সামরিক মহড়ার মেয়াদ বাড়াচ্ছে। এরপরই বিভিন্ন উপগ্রহ চিত্রে দেখা যায় ইউক্রেন সীমান্তে আরও বেশি সংখ্যক অস্ত্র, জওয়ান মোতায়েন করেছে। এদিকে পূর্ব ইউক্রেনের দনবাসের থেকে বিস্ফোরণের খবর আসতে থাকে। রাশিয়াপন্থী বিদ্রোহীরা দাবি করে ইউক্রেনের সেনা তাদের উপর হামলা চালাচ্ছে। যদিও পশ্চিমা দেশগুলির দাবি, এই সবটাই রাশিয়ার প্রচার। যুদ্ধের পক্ষে ‘যুক্তি’ সাজানোর প্রেক্ষাপট হিসেবে এই ঘটনাগুলিকে সাজানো হচ্ছে। এই আবহে শান্তির পথ খুঁজতে কূটনীতির রাসতায় শেষ একবার হাঁটতে চাইছে সবাই।

 

বন্ধ করুন