বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > সরকারি বিধি পালন, উত্তরপ্রদেশের উপ-মুখ্যমন্ত্রীর ছেলের বিয়েতে হাজির মাত্র ২১ জন
উত্তরপ্রদেশের উপ-মুখ্যমন্ত্রী কেশবপ্রসাদ মৌর্যের ছেলের বিয়ে। (ছবি সৌজন্য টুইটার)
উত্তরপ্রদেশের উপ-মুখ্যমন্ত্রী কেশবপ্রসাদ মৌর্যের ছেলের বিয়ে। (ছবি সৌজন্য টুইটার)

সরকারি বিধি পালন, উত্তরপ্রদেশের উপ-মুখ্যমন্ত্রীর ছেলের বিয়েতে হাজির মাত্র ২১ জন

  • সরকারি নিয়মে সর্বাধিক ২৫ জন উপস্থিত থাকতে পারতেন।

সরকারি নিয়মে সর্বাধিক ২৫ জন উপস্থিত থাকতে পারতেন। তবে উত্তরপ্রদেশের উপ-মুখ্যমন্ত্রী কেশবপ্রসাদ মৌর্যের ছেলের বিয়েতে আরও কম সংখ্যক অতিথি উপস্থিত থাকলেন। এমনটাই দাবি করলেন বিজেপি নেতারা।

শুক্রবার রায়বরেলীতে কেশবপ্রসাদের বড় ছেলের বিয়ে ছিল। বিয়ের যে ছবি প্রকাশ করা হয়েছে, তাতে হাতেগোনা কয়েকজনকে দেখা গিয়েছে। করোনাভাইরাস সুরক্ষা বিধি মেনে মাস্ক পরেই ছিলেন তাঁরা। ছেলের বিয়ের ছবি পোস্ট করে কেশবপ্রসাদ লেখেন, ‘করোনাভাইরাস সংক্রান্ত সুরক্ষাবিধি পালন করে আমার ছেলে যোগেশ কুমার মৌর্য এবং অঞ্জলি মৌর্যের বিয়ে হয়েছে। আমি ওদের অভ্যর্থনা জানাতে পারিনি, তাই আপনাদের শুভকামনা ও আশীর্বাদের প্রার্থনা করছি।’

বিজেপি নেতাদের দাবি, দিনকয়েক আগেই সরকারের তরফে বিয়েবাড়িতে উপস্থিতির সংখ্যা ২৫-এ বেঁধে দেওয়া হয়েছিল। আর খোদ উপ-মুখ্যমন্ত্রীর ছেলের বিয়েতে সেই নিয়ম একেবারে পুরোপুরি পালন করা হয়েছে। উপস্থিত ছিলেন মাত্র ২১ জন। যাঁরা একেবারে নিকটাত্মীয়। উত্তরপ্রদেশে বিজেপির মুখপাত্র নবীন শ্রীবাস্তব বলেন, ‘একজন শীর্ষস্থানীয় মন্ত্রী নিজেই উদাহরণ তুলে ধরলেন। করোনাভাইরাস সংক্রমণের শৃঙ্খল ভাঙার জন্য কম সংখ্যক মানুষের উপস্থিতিতে বিয়েবাড়ি আয়োজনের বার্তা দেবে সেই কাজ।’

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে আগে বদ্ধ হলে বিয়েবাড়িতে সর্বাধিক ৫০ জন উপস্থিত থাকতে পারতেন। আর ফাঁকা জায়গায় ১০০ জনের উপস্থিতির উপর ছাড় ছিল। কিন্তু গত ১৮ মে সেই সংখ্যাটা ২৫-এ নামিয়ে আনা হয়। অর্থাৎ এখন থেকে বদ্ধ হল হোক বা ফাঁকা লন হোক - বিয়েবাড়িতে ২৫ জনের বেশি উপস্থিত থাকতে পারবেন না।

বন্ধ করুন