বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > কোভিডকালে পিএম কেয়ার্সের সাহায্য পেয়েছে মাত্র ৩৮৫৫ অনাথ, সংসদে জানালেন স্মৃতি
কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি (ছবি সৌজন্যে এএনআই) (ANI)

কোভিডকালে পিএম কেয়ার্সের সাহায্য পেয়েছে মাত্র ৩৮৫৫ অনাথ, সংসদে জানালেন স্মৃতি

  • কেন্দ্রীয় মহিলা ও শিশু উন্নয়ন মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি বলেন যে সরকারি প্রকল্পের অধীনে সাহায্য পেতে মোট ৬৬২৪ জন আবেদন করেছিল।

মহিলা ও শিশু উন্নয়ন মন্ত্রক সংসদে জানিয়েছে যে মহামারী চলাকালীন অনাথ হওয়া ৩৮৫৫ জন শিশুকে এখনও পর্যন্ত 'পিএম-কেয়ার্স ফর চিলড্রেন প্রকল্পের অধীনে সুযোগ সুবিধা দেওয়া হয়েছে। রাজ্যসভায় সিপিআই(এম) সাংসদ জন ব্রিটাসের করা প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রক এই তথ্যটি প্রকাশ করেছে। ব্রিটাস জানতে চেয়েছিলেন যে সরকার বা কোনও সংস্থা কোভিড মহামারীর কারণে অনাথ হওয়া শিশুদের তালিকা তৈরি করেছে কিনা।

রাজ্যসভায় একটি লিখিত উত্তরে কেন্দ্রীয় মহিলা ও শিশু উন্নয়ন মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি বলেন যে সরকারি প্রকল্পের অধীনে সাহায্য পেতে মোট ৬৬২৪ জন আবেদন করেছিল। তাদের মধ্যে থেকে ৩৮৫৫ জনকে সরকারের তরফ থেকে সুযোগ সুবিধা দেওয়া হয়েছে। স্মৃতি ইরানির পেশ করা তথ্য অনুসারে সর্বাধিক সংখ্যক ১১৫৮টি আবেদন মহারাষ্ট্র থেকে এসেছে সরকারের থেকে। তারপরেই উত্তরপ্রদেশ থেকে এসেছে ৭৬৮, মধ্যপ্রদেশ থেকে এসেছে ৭৩৯, তামিলনাড়ু থেকে ৪৯৬ এবং অন্ধ্রপ্রদেশ ৪৭৯টি আবেদন এসেছে সরকারের কাছে।

শিশুদের সাহায্য করার জন্য সরকার কী পদক্ষেপ নিচ্ছে তা জিজ্ঞাসা করা হলে, মন্ত্রক বলে যে এটি শিশু সুরক্ষা পরিষেবা (সিপিএস) স্কিম নামে একটি কেন্দ্রীয় স্পনসরড প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। এই প্রকল্পের নাম মিশন বাতসল্য। এর অধীনে রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত কেন্দ্র সরকারগুলিকে পরিষেবা সরবরাহের জন্য সহায়তা দেওয়া হয়। যত্নের প্রয়োজনে থাকা শিশুদের এবং কঠিন পরিস্থিতিতে থাকা শিশুদের এই সহায়তা প্রদান করা হবে।

মন্ত্রণালয় একটি লিখিত বিবৃতিতে বলেছে, ‘স্কিম নির্দেশিকা অনুসারে, যত্ন ও সুরক্ষার প্রয়োজনে থাকা শিশুদের অ-প্রাতিষ্ঠানিক পরিচর্যার জন্য প্রতি মাসে ২০০০ টাকার স্পনসরশিপ। এবং কেয়ার ইনস্টিটিউশনে বসবাসকারী শিশুদের রক্ষণাবেক্ষণের জন্য প্রতি মাসে ২১৬০ টাকার অনুদানের বিধান রয়েছে।’

বন্ধ করুন