বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > কম ব্যবহৃত সম্পদের বেসরকারি বিনিয়োগ, মালিকানা সরকারের হাতেই, NMP চালু কেন্দ্রের
ন্যাশনাল মানিটাইজেশন পাইপলাইনের সূচনা। (ছবি সৌজন্য এএনআই)
ন্যাশনাল মানিটাইজেশন পাইপলাইনের সূচনা। (ছবি সৌজন্য এএনআই)

কম ব্যবহৃত সম্পদের বেসরকারি বিনিয়োগ, মালিকানা সরকারের হাতেই, NMP চালু কেন্দ্রের

  • সেই প্রকল্পের আওতায় আগামী চার-পাঁচ বছর ধরে খেলার স্টেডিয়াম, রাস্তা, রেল, ফোনের টাওয়ার, বিদ্যুতের মতো সরকারি পরিকাঠামো সম্পত্তির ক্ষেত্রে বেসরকারি বিনিয়োগের দরজা খুলে দেওয়া হবে।

কোনও সরকারি সম্পত্তি বিক্রি করা হবে না। তহবিল সংগ্রহের জন্য তা আরও ভালোভাবে ব্যবহার করা হবে। সোমবার ছ'লাখ কোটি টাকার ন্যাশনাল মানিটাইজেশন পাইপলাইনের সূচনা করে এমনই জানালেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন। সেইসঙ্গে আশ্বাস দিলেন, শুধুমাত্র কম ব্যবহৃত সম্পদের ক্ষেত্রে বেসরকারি বিনিয়োগ টানা হবে। মালিকানা সরকারের কাছে থাকবে।

এমনিতে মূলত দু'ভাবে তহবিল সংগ্রহ করত কেন্দ্র। করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে রাজকোষে অর্থের জোগান বাড়াতে চলতি বছরের বাজেটে ন্যাশনাল মানিটাইজেশন পাইপলাইন চালুর ঘোষণা করেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী। যে কর্মসূচির আওতায় আগামী চার বছর ধরে রেল, রাস্তা, বিমানবন্দর, খেলার স্টেডিয়াম, বিদ্যুৎ বণ্টন, ফোনের টাওয়ার, গ্যাসের সংযোগ মতো সম্পত্তির ক্ষেত্রে বেসরকারি বিনিয়োগের দরজা খুলে দেওয়া হচ্ছে। যা ২০২১-২২ অর্থবর্ষ থেকে ২০২৫-২৬ অর্থবর্ষ পর্যন্ত চালু থাকবে।

সোমবার সীতারামন আশ্বস্ত করেন, বেসরকারি বিনিয়োগ টেনে সেই প্রকল্পের মাধ্যমে সরকারের হাতে সম্পত্তি আরও ভালোভাবে ব্যবহৃত হবে। যা অর্থনীতিকে চাঙ্গা করবে। একটি নির্দিষ্ট সময়ের পর বেসরকারি সংস্থাগুলিকে কেন্দ্রের হাতে সেই সম্পত্তি তুলে দিতে হবে। সেই কর্মসূচির মাধ্যমে কেন্দ্রের হাতে যে টাকা আসবে, তা পরিকাঠামো উন্নয়ন এবং নয়া পরিকাঠামো তৈরির কাজে ব্যবহার করবে সরকার। সীতারামন বলেন, 'নয়া পরিকাঠামো তৈরির জন্য বেসরকারি ক্ষেত্রকে ব্যবহার করার চিন্তাভাবনা থেকে এই কর্মসূচি চালু করা হয়েছে। যা কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরির জন্য আবশ্যিক। তার ফলে আর্থিক বৃদ্ধি হবে, জনকল্যাণের স্বার্থের বাধাহীনভানে গ্রামীণ এবং আধা-গ্রাম্য এলাকার মধ্যে যোগসূত্র তৈরি হবে।'

বন্ধ করুন