বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > বেড়া দেওয়া নিয়ে অশান্তি, পাকিস্তান ও তালিবানের মধ্যে তুমুল গুলির লড়াই
কাবুলের রাস্তায় তালিবানের পাহারা (REUTERS) (REUTERS)
কাবুলের রাস্তায় তালিবানের পাহারা (REUTERS) (REUTERS)

বেড়া দেওয়া নিয়ে অশান্তি, পাকিস্তান ও তালিবানের মধ্যে তুমুল গুলির লড়াই

  • তেহরিক-ই-তালিবান পাকিস্তান শনিবার দাবি করেছে ১৯শে ডিসেম্বর যে হামলা হয়েছিল তার পেছনে তারা রয়েছে।

পাকিস্তানি সুরক্ষা বাহিনীর সঙ্গে আফগানি তালিবানদের জোর গুলির লড়াই। ডুরান্ড লাইন বরাবর একেবারে তুমুল গোলাগুলি চলেছে বলে খবর। বজৌরের স্থানীয় অন্তত তিনটি গ্রামের কাছে একে অপরকে লক্ষ্য করে গুলি চালিয়েছে বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে। স্থানীয় একাধিক রিপোর্ট অনুসারে শুক্রবার বিকালে অন্তত আধঘন্টা ধরে পরস্পরের মধ্যে গুলি বিনিময় হয়। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, সীমান্তে কাঁটাতার দেওয়ার কাজ হয়েছে। সেখানেই তালিবানের গুলিতে দুজন পাক সৈনিকের মৃত্যু হয়। এরপরই কার্যত পালটা জবাব দেওয়া শুরু করে পাকিস্তানি সেনা বাহিনী। স্থানীয় রিপোর্টে জানা গিয়েছে, ওই এলাকায় ব্যাপক গোলাগুলি চলেছে। একাধিক গ্রামবাসীও জখম হয়েছেন। 

পাকিস্তানি সুরক্ষা বাহিনীর সঙ্গে আফগানি তালিবানদের জোর গুলির লড়াই। ডুরান্ড লাইন বরাবর একেবারে তুমুল গোলাগুলি চলেছে বলে খবর। বজৌরের স্থানীয় অন্তত তিনটি গ্রামের কাছে একে অপরকে লক্ষ্য করে গুলি চালিয়েছে বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে। স্থানীয় একাধিক রিপোর্ট অনুসারে শুক্রবার বিকালে অন্তত আধঘন্টা ধরে পরস্পরের মধ্যে গুলি বিনিময় হয়। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, সীমান্তে কাঁটাতার দেওয়ার কাজ হয়েছে। সেখানেই তালিবানের গুলিতে দুজন পাক সৈনিকের মৃত্যু হয়। এরপরই কার্যত পালটা জবাব দেওয়া শুরু করে পাকিস্তানি সেনা বাহিনী। স্থানীয় রিপোর্টে জানা গিয়েছে, ওই এলাকায় ব্যাপক গোলাগুলি চলেছে। একাধিক গ্রামবাসীও জখম হয়েছেন। 

|#+|

এসবের মধ্যেই তেহরিক-ই-তালিবান পাকিস্তান শনিবার দাবি করেছে ১৯শে ডিসেম্বর যে হামলা হয়েছিল তার পেছনে তারা রয়েছে। সেদিন মন্ত্রী শিবলি ফরাজের উপর হামলা হয়। তাতে গাড়ির চালক ও দেহরক্ষী জখম হন। এদিকে তালিবান ও পাকিস্তান দুতরফেই দাবি করা হয়েছে সীমান্তে বেড়া দেওয়ার কাজ দুপক্ষের সম্মতিতেই হবে। এক আধিকারিক জানিয়েছেন, দুপক্ষের মধ্যে সহমতের ভিত্তিতে যাতে বেড়া দেওয়ার কাজ হয় তা দেখা হচ্ছে। তবে কোনস্তরে আলোচনা হবে সেব্যাপারে নিশ্চিত করে কিছু বলা হয়নি। তবে সীমান্তে বেড়া দেওয়ার পাশাপাশি বর্ডার পোস্টও তৈরি হবে। সূত্রের খবর ৯০ শতাংশ ক্ষেত্রে বেড়া দেওয়ার কাজ হয়ে গিয়েছে। এদিকে আফগানরা সাধারণত ডুরান্ড লাইনকে মেনে চলেন। কিন্তু পাকিস্তানিরা তা মানতে চান না। আর তা নিয়েই বিরোধ চরমে।

 

বন্ধ করুন