বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > আন্দামানের কাছে পরিত্যক্ত বাংলাদেশি পণ্যবোঝাই জাহাজ! ১০২ কোটির পণ্য ঘিরে রহস্য
ছবিটি প্রতীকী
ছবিটি প্রতীকী

আন্দামানের কাছে পরিত্যক্ত বাংলাদেশি পণ্যবোঝাই জাহাজ! ১০২ কোটির পণ্য ঘিরে রহস্য

  • ঘটনাটি একমাস আগে ঘটলেও এই বিষয়ে জাহাজের মালিকপক্ষ মুখ খোলেনি এখনও।

ভিয়েতনাম থেকে বাংলাদেশের চট্টাগ্রামে যাওয়ার পথে ‘পরিত্যক্ত’ করা হয় 'এমভি তান বিন ১২৭' নামক এক জাহাজকে। জানা গিয়েছে জাহাজটি পানামায় নথিভুক্ত করানো। এই জাহাজে ১১ হাজার মেট্রিক টন ইস্পাতের রোল ছিল। এই রোলের বাজারমূল্য ভারতীয় মুদ্রায় ১০২.৬২ কোটি টাকা। প্রসঙ্গত ঘটনাটি একমাস আগে ঘটলেও এই বিষয়ে জাহাজের মালিকপক্ষ মুখ খোলেনি। এটি ডুবেছে না পরিত্যক্ত অবস্থায় এখনও ভাসছে, তাও জানা যায়নি।

জানা গিয়েছে, ২০ বছর বয়সী জাহাজটিকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করে সব নাবিক নেমে য়ান জাহাজ থেকে। এই তথ্য দেওয়া হয়েছিল মিয়ানমার কর্তৃপক্ষের তরফে। তবে ১৩০ মিটার লম্বা জাহাজটি যে এখন কোথায়, কী অবস্থায়, তা জানা নেই কারোর। শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী, ১ অগস্ট মিয়ানমারের উপকূল থেকে ৯০ নটিক্যাল মাইল পশ্চিমে জাহাজটি পরিত্যক্ত ঘোষণা করেন জাহাজের মাস্টার। পরিত্যক্ত জাহাজের ১৮ জন নাবিককে 'এমসিসি চিটাগং' নামের একটি কনটেইনার জাহাজের নাবিকেরা উদ্ধার করেন।

বাংলাদেশের সংবাদপত্র প্রথম আলো-র তরফে জানা গিয়েছে, এই জাহাজে করেই ৫১৯ মেট্রিক টন ইস্পাতের কয়েল আমদানি করেন কেরানীগঞ্জের তন্ময় মেটাল ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের রতন কুমার বণিক। প্রথম আলোকে তিনি বলেছেন, 'শিপিং এজেন্ট থেকে জাহাজটি নিয়ে কোনও সুনির্দিষ্ট তথ্য আমরা পাচ্ছি না। একেক বার একেক রকম তথ্য দিচ্ছে আমাদের। জাহাজটি নিয়ে রহস্য তৈরি হয়েছে। অথচ জাহাজটি পরিত্যক্ত ঘোষণা করে নাবিকেরা নেমে গিয়েছেন। এখন জাহাজ ডুবে গেলে যদি ঘোষণা না করে, তাহলে বীমা ক্লেম করারও সুযোগ পাচ্ছি না। এই কারণে আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছি।'

 

বন্ধ করুন