বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > 'শ্রমিক স্পেশ্যাল' ট্রেনে যাত্রীপিছু ভাড়া ৬০০ টাকা, রেলের আয় ৩৬০ কোটি
'শ্রমিক স্পেশ্যাল' ট্রেনে যাত্রীপিছু ভাড়া ৬০০, রেলের আয় ৩৬০ কোটি (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
'শ্রমিক স্পেশ্যাল' ট্রেনে যাত্রীপিছু ভাড়া ৬০০, রেলের আয় ৩৬০ কোটি (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

'শ্রমিক স্পেশ্যাল' ট্রেনে যাত্রীপিছু ভাড়া ৬০০ টাকা, রেলের আয় ৩৬০ কোটি

  • দেশের বিভিন্ন প্রান্তে এখনও যে শ্রমিকরা আটকে রয়েছেন, তাঁদেরও বাড়ি ফেরানোর জন্য রাজ্যগুলির সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে রেল।

'শ্রমিক স্পেশ্যাল' ট্রেনে যাত্রীপিছু ভাড়া পড়েছে  ৬০০ টাকা। এমনটাই জানালেন রেলওয়ে বোর্ডের চেয়ারম্যান ভি কে যাদব। একইসঙ্গে তিনি জানান, এখনও পর্যন্ত প্রায় ৬০ লাখ পরিযায়ী শ্রমিককে নিজেদের গন্তব্যে পৌঁছে দিয়েছে রেল।

একটি ভার্চুয়াল সাংবাদিক বৈঠকে রেলওয়ে বোর্ডের চেয়ারম্যান জানান, শ্রমিকদের ভাড়ার মাত্র ১৫ শতাংশ পেয়েছে রেল। বাকি ৮৫ শতাংশ খরচ জাতীয় পরিবহন সংস্থা বহন করেছে। তাঁর কথায়, ‘মেল এক্সপ্রেস ট্রেনের সাধারণ স্লিপার ক্লাসের হারে ভাড়া নেওয়া হয়েছে।’ অর্থাৎ 'শ্রমিক স্পেশ্যাল' ট্রেন চালিয়ে রেলের ভাঁড়ারে ৩৬০ কোটি টাকা ঢুকেছে বলে ইঙ্গিত তাঁর।

রেলমন্ত্রকের এক মুখপাত্রের অবশ্য দাবি, ট্রেন চালানোর জন্য যাত্রীপিছু ৩,৪০০ টাকার মতো খরচ করেছে রেল। গত ১ মে থেকে ৪,৪৫০ টি ‘শ্রমিক স্পেশ্যাল’ ট্রেন চলেছে। নিজেদের গন্তব্যে পৌঁছেছেন ৬০ লাখের বেশি শ্রমিক।

দেশের বিভিন্ন প্রান্তে এখনও যে শ্রমিকরা আটকে রয়েছেন, তাঁদেরও বাড়ি ফেরানোর জন্য রাজ্যগুলির সঙ্গে যোগাযোগ রাখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন রেল বোর্ডের চেয়ারম্যান। তিনি বলেন, ‘খুব কম শ্রমিক আছেন, কারণ অধিকাংশ শ্রমিক বাড়ি পৌঁছে গিয়েছেন। বাকি পরিযায়ী শ্রমিকদের ভিটেয় ফেরানোর জন্য আমরা রাজ্যগুলির সঙ্গে সহযোগিতা করব। গত ৩ জুন আমরা রাজ্যগুলিকে বাকি ট্রেন নিয়ে নিজেদের দাবি জানাতে বলেছিলাম এবং বিভিন্ন রাজ্য থেকে আমরা ১৭১ টি শ্রমিক স্পেশ্যাল ট্রেন চালানোর আর্জি পেয়েছি। গত ১৪ জুন পর্যন্ত আমরা ২২২ টি শ্রমিক স্পেশ্যাল ট্রেন চালিয়েছি। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশের পর বাড়তি চাহিদার সামাল দেওয়ার জন্য আমরা রাজ্যগুলির প্রয়োজনীয়তা জানতে চেয়েছি।’

রেল বোর্ডের চেয়ারম্যানের চিঠির পর আপাতত ৬৩ টি বিশেষ ট্রেনের দাবি জানিয়েছে সাতটি রাজ্য়। রেল মন্ত্রক জানিয়েছে, কেরালা, অন্ধ্রপ্রদেশ, কর্নাটক, তামিলনাড়ু, পশ্চিমবঙ্গ, গুজরাত এবং জম্মু ও কাশ্মীরের তরফে আরও ট্রেনের দাবি জানানো হয়েছে। 

বন্ধ করুন