বাড়ি > ঘরে বাইরে > প্লাজমা থেরাপির ফলে করোনায় মৃত্যুর হার কমেনি, নয়া তথ্য মিলল ICMR-এর গবেষণায়
প্লাজমা থেরাপির ফলে করোনায় মৃত্যুর হার কমেনি, নয়া তথ্য মিলল ICMR-এর গবেষণায় (ছবি সৌজন্য পিটিআই)
প্লাজমা থেরাপির ফলে করোনায় মৃত্যুর হার কমেনি, নয়া তথ্য মিলল ICMR-এর গবেষণায় (ছবি সৌজন্য পিটিআই)

প্লাজমা থেরাপির ফলে করোনায় মৃত্যুর হার কমেনি, নয়া তথ্য মিলল ICMR-এর গবেষণায়

  • দেশের ১৪ টি রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের ২৫ টি শহরে সেই গবেষণা চালানো হয়েছিল।

করোনাভাইরাসে মৃত্যুর হার হ্রাস করতে সাহায্য করেনি প্লাজমা থেরাপি। এমন তথ্যই উঠে এল ইন্ডিয়ান কাউন্সিল মেডিক্যাল রিসার্চের (আইসিএমআর) একটি গবেষণায়।

করোনা চিকিৎসায় প্লাজমা থেরাপির কার্যকারিতা খতিয়ে দেখতে দেশের ১৪ টি রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের ২৫ টি শহরের ৩৯ টি হাসপাতালে সেই গবেষণা চালানো হয়েছিল। তার মধ্যে ২৯ টি ছিল সরকারি হাসপাতাল। বাকিগুলি ছিল বেসরকারি হাতে। 

আইসিএমআরের তরফে জানানো হয়েছে, গত ২২ এপ্রিল থেকে ১৪ জুলাই হাসপাতালে ভরতি ১,২১০ জন রোগীর (মাঝারিমানের অসুস্থতা এবং করোনা পজিটিভ) উপর সেই স্ক্রিনিং চালানো হয়েছিল। তাঁদের মধ্যে কয়েকজনকে এলোমেলোভাবে বেছে নেওয়া হয়েছিল। কাউকে আবার রাখা হয়েছিল ‘ইন্টারভেনশন আর্ম’ বা ‘কন্ট্রোল আর্ম’-এ।

সেই গবেষণায় জানানো হয়েছে, গুরুতর করোনার ক্ষেত্রে উন্নতি বা মৃত্যু কমানোর সঙ্গে প্লাজমার যোগ নেই। আগেভাগে দাতা ও অংশগ্রহণকারীদের অ্যান্টিবডির মাত্রা (অ্যান্টিবডি টিটার) কমানোর বিষয়টি পরিমাপের মাধ্যমে করোনার মোকাবিলায় প্লাজমার ভূমিকা আরও স্পষ্ট হতে পারে। অ্যান্টিবডি টিটার হল এক ধরনের রক্ত পরীক্ষা, যা রক্তে অ্যান্টিবডির উপস্থিতি এবং মাত্রা মূল্যায়ন করে। শরীরে প্রবেশকারী অ্যান্টিজেনের বিরুদ্ধে শরীরের প্রতিরোধ ক্ষমতা আছে কিনা, তা জানতে সেই পরীক্ষা করা হয়।

গবেষণায় জানানো হয়েছে, যাঁরা ‘ইন্টারভেনশন আর্ম’-এ ছিলেন, তাঁদের ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে ২০০ মিলিমিটারের দু'টি ডোজ  দেওয়া হয়েছিল। সঙ্গে সর্বোচ্চ মানের পরিষেবা প্রদান করা হয়েছিল। প্রাপ্যতার উপর নির্ভর করে দু'জন পৃথক দাতার থেকে সংগ্রহ করা হয়েছিল দুটি প্লাজমা ইউনিট। আইসিএমআরের তরফে বলা হয়েছে, ‘প্লেসিড ট্রায়ালের (প্লাজমা থেরাপি) পরীক্ষা থেকে জানা যাচ্ছে যে মাঝারি মাত্রায় অসুস্থ করোনা রোগীদের সর্বোচ্চ মানের দেখভালের পরও ২৮ দিনের মৃত্যুর হারে কোনও পার্থক্য বা গুরুতর অসুস্থতার ক্ষেত্রে কোনও উন্নতি পরিলক্ষিত হচ্ছে না।’

বন্ধ করুন