বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > ‘অপ্রাসঙ্গিক আইন বাতিল করুন’, মুখ্যমন্ত্রীদের সংবেদনশীল হওয়ার বার্তা মোদীর
ভারতের প্রধান বিচারপতি এনভি রামানা এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (ছবি - পিটিআই) (PTI)
ভারতের প্রধান বিচারপতি এনভি রামানা এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (ছবি - পিটিআই) (PTI)

‘অপ্রাসঙ্গিক আইন বাতিল করুন’, মুখ্যমন্ত্রীদের সংবেদনশীল হওয়ার বার্তা মোদীর

  • মোদী আজকের অনুষ্ঠানে বলেন, ‘সাধারণ মানুষের জন্য আইনের জটিলতাও একটি গুরুতর বিষয়। ২০১৫ সালে আমরা প্রায় ১৮০০টি এমন আইন চিহ্নিত করেছি যা অপ্রাসঙ্গিক হয়ে উঠেছে। এর মধ্যে কিছু কেন্দ্রের আইন ছিল। আমরা সেই মতো ১৪৫০টি আইন বাতিল করেছি। কিন্তু রাজ্যগুলি মাত্র ৭৫টি আইন বাতিল করেছে।’

সাধারণ মানুষ যাতে আইনের জাল থেকে বেরিয়ে আসতে পারেন, তার জন্য এমন সব আইন বাতিল করা হোক যেগুলি অপ্রাসঙ্গিক হয়ে উঠেছে। শুক্রবার হাই কোর্টের বিচারপতি এবং মুখ্যমন্ত্রীদের যৌথ সম্মেলনে এমনই বার্তা দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। শনিবার দিল্লির বিজ্ঞান ভবনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ভারতের প্রধান বিচারপতি এনভি রামানা এবং কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী কিরেন রিজিজু।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী আজকের অনুষ্ঠানে বলেন, ‘সাধারণ মানুষের জন্য আইনের জটিলতাও একটি গুরুতর বিষয়। ২০১৫ সালে আমরা প্রায় ১৮০০টি এমন আইন চিহ্নিত করেছি যা অপ্রাসঙ্গিক হয়ে উঠেছে। এর মধ্যে কিছু কেন্দ্রের আইন ছিল। আমরা সেই মতো ১৪৫০টি আইন বাতিল করেছি। কিন্তু রাজ্যগুলি মাত্র ৭৫টি আইন বাতিল করেছে।’

আরও পড়ুন: ‘হিন্দি না বলতে পারলে ছাড়তে হবে দেশ’, ভাষা বিতর্কে ঘি ঢাললেন যোগীর মন্ত্রী

আজকের অনুষ্ঠানে দেশের সব হাই কোর্টের প্রধান বিচারপতিদের সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল, উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগ আদিত্যনাথ, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, হরিয়ানার মনোহর লাল খট্টর, ছত্তিশগড়ের মুখ্যমন্ত্রী ভূপেশ বাঘেল, অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা, অরুণাচলপ্রদেশের পেমা খান্ডু, মেঘালয়ের মুখ্যমন্ত্রী কনরাড সাংমা, পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী ভগবন্ত মান সহ অনেকে।

তাঁদের উপস্থিতিতেই মোদী বলেন, ‘বর্তমানে দেশে প্রায় সাড়ে তিন লাখ বন্দী রয়েছে যারা বিচারাধীন এবং কারাগারে রয়েছে। এসব লোকের বেশির ভাগই দরিদ্র বা সাধারণ পরিবারের। প্রতিটি জেলায় একটি কমিটি রয়েছে জেলা জজের নেতৃত্বে। এই মামলাগুলি পর্যালোচনা করার জন্য এই কমিটি। যেখানে সম্ভব তাদের জামিনে মুক্তি দেওয়া যেতে পারে। আমি সমস্ত মুখ্যমন্ত্রী, হাই কোর্টের প্রধান বিচারপতিদের কাছে মানবিক সংবেদনশীলতা এবং আইনের ভিত্তিতে এই বিষয়গুলিকে অগ্রাধিকার দেওয়ার জন্য আবেদন করব।’

বন্ধ করুন