রাজনৈতিক স্বার্থে তাঁর মেয়ের মৃত্যুকে ব্যবহার করা হচ্ছে, অভিযোগ আশাদেবীর (ফাইল ছবি, সৌজন্য এএনআই)
রাজনৈতিক স্বার্থে তাঁর মেয়ের মৃত্যুকে ব্যবহার করা হচ্ছে, অভিযোগ আশাদেবীর (ফাইল ছবি, সৌজন্য এএনআই)

'মেয়ের মৃত্যু নিয়ে রাজনীতি হচ্ছে', কাঁদতে কাঁদতে বললেন নির্ভয়ার মা

  • আশাদেবী বলেন, ২০১২ সালে যখন ঘটনা হয়েছিল, তখন যে লোকজন হাতে তেরঙা নিয়ে, মাথায় কালো ফেট্টি বেঁধে মহিলাদের সুরক্ষার দাবিতে খুব আন্দোলন করেছিলেন, সেই লোকেরাই আজ আমার মেয়ের মৃত্যু নিয়ে খেলা করছেন।

তাঁর মেয়ের মৃত্যু নিয়ে রাজনীতি চলছে। এমনই অভিযোগ করলেন নির্ভয়ার মা আশাদেবী।

আরও পড]নির্ভয়া-দোষীদের ফাঁসির ড্রেস রিহার্সাল হল তিহাড়ে

২০১২ সালের ১৬ ডিসেম্বরের সেই রাতের পর উত্তাল হয়েছিল রাজধানী। পথে নেমেছিলেন অসংখ্য মানুষ। কিন্তু তাঁদের অনেকেই আজ নির্ভয়ার মৃত্যু নিয়ে রাজনীতি করছেন বলে অভিযোগ আশাদেবীর।

আরও পড়ুন : নির্ভয়ার ধর্ষকদের ফাঁসি ২২ জানুয়ারি- অবশেষে বিচার পেলাম, খুশিতে বললেন মা


তিনি বলেন, 'রাজনীতি থেকে দূরে থেকে হাতজোড় করে আইনের থেকে সুবিচার চেয়েছিলাম। কিন্তু এখন আমি বলতে চাই, ২০১২ সালে যখন ঘটনা হয়েছিল, তখন যে লোকজন হাতে তেরঙা নিয়ে, মাথায় কালো ফেট্টি বেঁধে মহিলাদের সুরক্ষার দাবিতে খুব আন্দোলন করেছিলেন, সেই লোকেরাই আজ আমার মেয়ের মৃত্যু নিয়ে খেলা (পড়ুন রাজনীতি) করছেন।'

আরও পড়ুন : নির্ভয়াকাণ্ড : খারিজ হোক প্রাণভিক্ষার আর্জি, রাষ্ট্রপতিকে সুপারিশ কেন্দ্রের

দীর্ঘদিন ধরে দোষীদের বিচারপর্ব চলছে। আদালত ফাঁসির রায় দেওয়ার পরও এখনও তা কার্যকর হয়নি। তা নিয়ে আশাদেবীর অভিযোগ, 'নিজেদের (পড়ুন রাজনীতিবিদদের) ফায়দার জন্য ফাঁসি আটকানো হচ্ছে।'

আরও পড়ুন : নির্ভয়া কাণ্ডের সাত বছর- ফাঁসুড়ে হতে চেয়ে বিদেশ থেকে চিঠি তিহাড়ে :

২২ জানুয়ারি সকাল সাতটায় চার দোষীকে ফাঁসিতে ঝোলানোর মৃত্যু পরোয়ানা জারি হলেও তা কার্যকর হওয়া নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। মৃত্যু পরোয়ানায় নির্ধারিত সময় অনুযায়ী চার দোষীর ফাঁসি কার্যকর করার জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কাছে হাতজোড় করে অনুরোধ করেন তিনি। তাঁর আর্জি, 'একজন বাচ্চার মৃত্যুর সঙ্গে মজা করতে দেবেন না। চারজনের যেন ২২ জানুয়ারি ফাঁসি হয়।'

আরও পড়ুন : তৈরি তিহাড়, নির্ভয়ার ৪ ধর্ষকের ফাঁসির দায়িত্বে মীরাটের ফাঁসুড়ে


বন্ধ করুন