বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > কথা রাখেনি বিজেপি, মতুয়ারাও বঞ্চিত করার ক্ষমতা রাখে, পোস্ট মহাসঙ্ঘের শীর্ষ নেতার
প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে শান্তনু ঠাকুর (ফাইল ছবি)

কথা রাখেনি বিজেপি, মতুয়ারাও বঞ্চিত করার ক্ষমতা রাখে, পোস্ট মহাসঙ্ঘের শীর্ষ নেতার

  • মতুয়া ভক্তের বাড়িতে পাত পেড়ে মধ্যাহ্নভোজনও সেরেছিলেন বিজেপির হেভিওয়েট নেতা।

নির্বাচনের আগে একেবারে ঘটা করে ঠাকুরনগরে ছুটে গিয়েছিলেন বিজেপির তাবড় নেতারা। মতুয়া ভক্তের বাড়িতে পাত পেড়ে মধ্যাহ্নভোজনও সেরেছিলেন বিজেপির হেভিওয়েট নেতা। আর তার সঙ্গেই ছিল ঢালাও প্রতিশ্রুতি। তবে মতুয়ারাও নিরাশ করেনি বিজেপিকে। কার্যত দুহাত উপুড় করে দিয়েছেন তাঁরা। আর সেই বিজেপিই নাকি কথা রাখেনি মতুয়াদের। অভিযোগ এমনটাই। এমনকী দলের রাজ্য কমিটিতেও মতুয়া প্রতিনিধির ঠাঁই হয়নি। এনিয়ে ক্ষোভে অভিমানে দলের হোয়াটস অ্য়াপ গ্রুপ ছেড়েছেন দলের পাঁচ মতুয়া বিধায়ক। সাংসদ শান্তনু ঠাকুরও জেপি নাড্ডার সঙ্গে দেখা করার জন্য সময় চেয়েছেন।

তবে এসবের মধ্যেই ফেসবুক পোস্ট সর্বভারতীয় মতুয়া মহাসঙ্ঘের সাধারণ সম্পাদক সুখেন্দ্রনাথ গায়েনের। সেখানে লেখা হয়েছে সর্বভারতীয় মতুয়া মহাসঙ্ঘ আর কোনও নির্দিষ্ট রাজনৈতিক দলকে সমর্থন করবে না। পরের পোস্টে তিনি লেখেন, মতুয়াদের বঞ্চিত করা হচ্ছে। তৈরি থাকুন আগামী দিনের জন্য। মতুয়ারাও বঞ্চিত করার ক্ষমতা রাখে। একেবারে সরাসরি বঞ্চনার অভিযোগ উঠেছে মতুয়া মহাসঙ্ঘের তরফ থেকে। সেই সঙ্গেই সংবাদ মাধ্যমে তিনি জানিয়ে দিয়েছেন, আমাদের  উন্নয়ন যাঁরা করবেন তাঁদের সঙ্গেই থাকব। তিনি জানিয়েছেন, ১১ দফা দাবি নিয়ে বিজেপিতে সমর্থন করেছিলাম। তার মধ্যে একটি দাবি ছিল নাগরিকত্ব। এখনও পর্যন্ত একটি দাবিও পূরণ হয়নি। সব ক্ষেত্রে মতুয়ারা বঞ্চিত হচ্ছে। তবে আমাদের একজনকে দেশের মন্ত্রী করা হয়েছে। এজন্য মোদীকে ধন্যবাদ। কিন্তু আরও দাবি আমাদের রয়েছে। 

বন্ধ করুন