বাড়ি > ঘরে বাইরে > 'ভারত-চিন সম্পর্কের ক্ষেত্রে অত্যন্ত বড় ক্ষতি', প্রণববাবুর মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ বেজিংয়ের
২০১৬ সালে চিন সফরে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায় (ফাইল ছবি, সৌজন্য পিটিআই)
২০১৬ সালে চিন সফরে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায় (ফাইল ছবি, সৌজন্য পিটিআই)

'ভারত-চিন সম্পর্কের ক্ষেত্রে অত্যন্ত বড় ক্ষতি', প্রণববাবুর মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ বেজিংয়ের

  • ২০১৬ সালে চিন সফরে গিয়েছিলেন তৎকালীন রাষ্ট্রপতি প্রণববাবু।

প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের প্রয়াণে শোকপ্রকাশ করল চিন। বেজিংয়ের তরফে মন্তব্য করা হল, প্রণববাবুর মৃত্যুতে ইন্দো-চিন বন্ধুত্বের ক্ষেত্রে অত্যন্ত বিশাল ক্ষতি হয়ে গেল।

মঙ্গলবার সাংবাদিক বৈঠকে একটি প্রশ্নের জবাবে চিনা বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র হুয়া চুনইয়ং বলেন, ‘ভারতের প্রবীণ রাষ্ট্রনায়ক ছিলেন প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়। ৫০ বছরের রাজনৈতিক জীবনে চিন-ভারতের সম্পর্কের ক্ষেত্রে তিনি ইতিবাচক অবদান রেখেছিলেন।’

চিনা বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র জানান, ২০১৪ সালের ভারত সফরে এসে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি প্রণববাবুর সঙ্গে দেখা করেছিলেন চিনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। সেই সাক্ষাতের পর যৌথ বিবৃতিতে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের উপর জোর দেওয়া হয়েছিল। হুয়া বলেন, ‘চিন-ভারত বন্ধুত্ব ও ভারতের জন্য এটা একটা অত্যন্ত বড় ক্ষতি। আমরা তাঁর মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করছি এবং ভারতীয় সরকার ও তাঁর পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছি।’

দু' বছর পর আবার চিনে গিয়েছিলেন প্রণববাবু। সেখানে চিনা নেতাদের সঙ্গে একাধিক বৈঠক করেছিলেন। ভারতীয় সংস্থার জন্য চিনের বাজার আরও খুলে দেওয়ার অনুরোধ করেছিলেন। গুয়াংঝাউতে জানিয়েছিলেন, ২০০০ সাল থেকে ভারত ও চিনের মধ্যে অর্থনৈতিক সম্পর্ক ক্রমশ ভালো হয়েছে। ২০০০ সালে দু'দেশের মধ্যে তিন বিলিয়ন ডলারের মতো বাণিজ্য হয়েছিল, সেখানে ২০১৫-১৬ সালে সেই অঙ্কটা দাঁড়িয়েছিল  ৭০ বিলিয়ন ডলারে।

পাশাপাশি ঘুরিয়ে দু'দেশের বিতর্কপূর্ণ সীমান্ত নিয়েও মুখ খুলেছিলেন প্রণববাবু। একইভাবে পরমাণু সরবরাহকারী গোষ্ঠীতে (এনএসজি) ভারতের অন্তর্ভুক্তির ক্ষেত্রে বেজিং যেভাবে বাধা দিচ্ছিল, কথার মারপ্যাঁচে তাও বুঝিয়ে দিয়েছিলেন প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি।

বন্ধ করুন