রাষ্ট্রপতি রাম নাথ কোবিন্দের প্রচেষ্টায় হাসি ফুটল হবু দম্পতির মুখে।
রাষ্ট্রপতি রাম নাথ কোবিন্দের প্রচেষ্টায় হাসি ফুটল হবু দম্পতির মুখে।

৪৮ ঘণ্টা আগে বিয়েবাড়ি বদলের নির্দেশ, রাষ্ট্রপতির হস্তক্ষেপে শেষরক্ষা

  • সোম ও মঙ্গলবার হোটেলে রাত কাটানোর কথা ছিল রাষ্ট্রপতি রাম নাথ কোবিন্দের। নিরাপত্তার কারণে তাই হবু দম্পতিকে বিয়ের অনুষ্ঠান অন্যত্র সরিয়ে নিতে বলে প্রশাসন।

আট মাস আগে পরিকল্পনা করেও শেষ মুহূর্তে বিয়েবাড়ি পালটানোর নির্দেশ পেয়ে হতাশ হয়েছিল গোটা পরিবার। শেষে রাষ্ট্রপতি রাম নাথ কোবিন্দের হস্তক্ষেপে কাটল অনিশ্চয়তার মেঘ।

আমেরিকার বাসিন্দা অ্যাশলি হল ভারতে এসে বিয়ে করার পরিকল্পনা করেছিলেন। বিয়ের অনুষ্ঠানের জন্য তিনি কোচি শহরের একটি পাঁচতারা হোটেল অগ্রিম বুক করেন আট মাস আগে।

যথা সময়ে আত্মীয়, বন্ধু ও হবু স্বামীকে নিয়ে কোচি এসে তাঁর আক্কেল গুড়ুম। জানতে পারেন, সোম ও মঙ্গলবার হোটেলে রাত কাটাবেন ভারতের রাষ্ট্রপতি রাম নাথ কোবিন্দ। নিরাপত্তার কারণে তাই বিয়ের অনুষ্ঠান অন্যত্র সরিয়ে নিতে বলে প্রশাসন।

এতদিন আগে তৈরি পরিকল্পনা প্রশাসনিক হস্তক্ষেপে ভেস্তে যেতে দেখে ভেঙে পড়েন মার্কিন যুবতী। মরিয়া হয়ে টুইটারের মাধ্যমে তিনি রাষ্ট্রপতি ভবনের কাছে সাহায্য চেয়ে পোস্ট করেন।

এদিকে সোমবার দুপুরে কোচির নৌবন্দরে এসে পৌঁছনোর কথা ছিল রাষ্ট্রপতির। সেই রাতে তিনি হোটেলে থাকবেন বলে দিল্লি থেকে নির্দেশ এসেছিল। অন্য দিকে, মঙ্গলবার বিয়ের অনুষ্ঠান অন্যত্র করার জন্য নবদম্পতির হাতে সময় দেওয়া হয়েছিল মাত্র ৪৮ ঘণ্টা। ভিনদেশে এত কম সময়ের মধ্যে উত্সবের নতুন আয়োজন করা চূড়ান্ত কঠিন সমস্যা হয়ে দাঁড়ায়।

অ্যাশলির প্রথম টুইটের কোনও জবাব দেয়নি রাষ্ট্রপতি ভবন। তবে দ্বিতীয় বার আবার সাহায্য চেয়ে টুইট করলে উত্তর মেলে।

রাইসিনা হিলস জানায়, বিয়ের অনুষ্ঠানে বিঘ্ন না ঘাটাতে মঙ্গলবার সকালেই কোচি ছেড়ে দিল্লি রওনা দেবেন রাষ্ট্রপতি। অতএব মঙ্গলবার হোটেলে নিরাপত্তার কড়াকড়ি তুলে নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

রাষ্ট্রপতি ভবনের সম্মতি পাওয়ার পরে বিয়ের অনুষ্ঠানের জন্য আর কোনও বাধা থাকেনি। পরে একটি টুইট মারফত নবদম্পতিকে শুভেচ্ছাও জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি কোবিন্দ স্বয়ং।

বন্ধ করুন