বাঁ দিকে অক্ষয় ঠাকুর। ডান দিকে বিনয় শর্মা। নির্ভয়াকাণ্ডে ফাঁসির সাজাপ্রাপ্ত ২ দোষী। (PTI)
বাঁ দিকে অক্ষয় ঠাকুর। ডান দিকে বিনয় শর্মা। নির্ভয়াকাণ্ডে ফাঁসির সাজাপ্রাপ্ত ২ দোষী। (PTI)

নির্ভয়ার দোষী অক্ষয় ঠাকুরের প্রাণভিক্ষার আর্জি খারিজ করলেন রাষ্ট্রপতি

  • বুধবারই নির্ভয়ার দোষীদের যাবতীয় আইনি পদক্ষেপ করার জন্য ৭ দিনের চরম সময়সীমা বেঁধে দিয়েছে আদালত। আদালতের তরফে স্পষ্ট করে দেওয়া হয়েছে, তার পর শুরু হবে ফাঁসির চূড়ান্ত প্রক্রিয়া।

নির্ভয়াকাণ্ডের দোষী অক্ষয় কুমার সিংয়ের প্রাণভিক্ষার আর্জি খারিজ করলেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। বুধবার সংবাদসংস্থা PTI-কে একথা জানিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। দিল্লি গণধর্ষণের চার দোষীর মধ্যে অন্যতম এই অক্ষয় ঠাকুর।

গত শুক্রবার রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আর্জি জানিয়েছিল অক্ষয়। তবে আগেই অন্য দোষীদের আর্জি খারিজ হওয়ায় তার আশা ছিল খুব কম। ইতিমধ্যে মুকেশ সিং ও বিনয় কুমার শর্মা নামে ২ দোষীর ক্ষমাভিক্ষার আর্জি খারিজ করেছেন রাষ্ট্রপতি।

বুধবারই নির্ভয়ার দোষীদের যাবতীয় আইনি পদক্ষেপ করার জন্য ৭ দিনের চরম সময়সীমা বেঁধে দিয়েছে আদালত। আদালতের তরফে স্পষ্ট করে দেওয়া হয়েছে, তার পর শুরু হবে ফাঁসির চূড়ান্ত প্রক্রিয়া। গত ৩১ জানুয়ারি নির্ভয়ার চার দোষীর ফাঁসিতে স্থগিতাদেশ জারি করেছিল আদালত। যার বিরোধিতায় সওয়াল করেছিল কেন্দ্রীয় সরকার।

দিল্লির কারা আইন অনুসারে কোনও মামলায় ফাঁসির সাজাপ্রাপ্তদের মধ্যে এক জনের ফাঁসির ওপর আদালত স্থগিতাদেশ জারি করলে বাকিদের ফাঁসিও স্থগিত হয়ে যায়। এই আইনের সুযোগ নিয়ে ইতিমধ্যে ২ বার ফাঁসির দড়িতে ঝোলার হাত থেকে বেঁচেছে নির্ভয়ার দোষীরা।

প্রথমে ফাঁসির দিন ঠিক হয়েছিল ২২ জানুয়ারি। পরে ১ ফেব্রুয়ারি ফাঁসির প্রস্তুতি শুরু করে জেল কর্তৃপক্ষ। কিন্তু তার কয়েক ঘণ্টা আগে ফাঁসিতে স্থগিতাদেশ দেয় আদালত। সেদিন আদালতে নির্ভয়ার মাকে অভিযুক্তদের আইনজীবী বলেন, ‘ফাঁসি কোনও দিন হবে না।’ যা নিয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া শুরু হয় দেশজুড়ে।


বন্ধ করুন